• শিরোনাম


    ১৯৮১ সালের এই দিনে শহিদ জিয়ার হত্যাকারী ১২ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর করা হয়।।

    | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৪:৫৬ পূর্বাহ্ণ

    ১৯৮১ সালের এই দিনে শহিদ জিয়ার হত্যাকারী ১২ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর করা হয়।।

    শহিদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ১৩ জন খুনির ফাইল ছবি।

    ১৯৮১ সালের ৩০শে মে চট্রগ্রাম সার্কিট হাউজে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জেনারেল জিয়াউর রহমানকে হত্যার অভিযোগে সামরিক আদালত সংক্ষিপ্ত বিচারের মাধ্যমে যে ১৩ জন সামরিক অফিসারকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ প্রদান করেন-তাঁদের মধ্যে ১২ জনের ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছিল দেশের বিভিন্ন কারাগারে ১৯৮১ সালেরই ২৩ সেপ্টেম্বর মধ্যরাতের পর ।    

    মৃত্যু দণ্ডাদেশ প্রাপ্ত ১৩ জনের মধ্যে একজন লেঃ কর্নেল শাহ্‌ মোহাম্মদ ফজলে হোসেন ঐ দিনের ঘটনায় গুরুতর আহত থাকায়- তিনি পরিপূর্ণ ভাবে সুস্থ হওয়ার পর ১৯৮৩ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর তাঁর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।
    মেজর জেনারেল আবদুর রহমানের নেতৃত্বে গঠিত সামরিক আদালতের ১৮ কার্য দিবসের বিচার কাজে যে ১৩ জন সামরিক কর্মকর্তাকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছিল,তাঁদের আধিকাংশই ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা। চট্রগ্রাম জেলের অভ্যন্তরে স্থাপিত এই সামরিক আদালতে বিচার কাজ শুরু হয় ১৯৮১ সালের ১০ জুলাই এবং শেষ হয় ২৮ জুলাই। দণ্ডাদেশ কার্যকর করা হয় ১৯৮১ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর মধ্য রাতের পর।



    ফাঁসির মাধ্যমে কার্যকর করা দণ্ডাদেশের সর্ব কনিষ্ঠ অফিসার লেফটেন্যান্ট মোহাম্মদ রফিকুল হাসান খানের বয়স ছিল তখন মাত্র ২৩ বছর!!

    ।।মৃত্যু দণ্ডাদেশ প্রাপ্ত ১৩ জন দেশদ্রোহী সামরিক অফিসার হলেনঃ
    ১। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মহসীন উদ্দিন আহমেদ
    ২। কর্নেল নওয়াজেস উদ্দিন
    ৩। কর্নেল এম আবদুর রশীদ
    ৪। লেঃ কর্নেল এ ওয়াইএম মাহফুজুর রহমান
    ৫। লেঃ কর্নেল এম দেলওয়ার হোসেন
    ৬। লেঃ কর্নেল শাহ্‌ মোহাম্মদ ফজলে হোসেন ( অসুস্থতাজনিত কারনে ১৯৮৩ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর দণ্ডাদেশ কার্যকর করা হয়)
    ৭। মেজর এ জেড গিয়াসুদ্দিন আহমেদ
    ৮। মেজর রওশন ইয়াজদানী ভূঁইয়া
    ৯। মেজর কাজী মমিনুল হক
    ১০। মেজর এম মজিবুর রহমান
    ১১। ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ আবদুস সাত্তার
    ১২। ক্যাপ্টেন জামিল হক
    ১৩। লেফটেন্যান্ট মোহাম্মদ রফিকুল হাসান খান

    ১৯৮২ সালের ২৪ শে মার্চ জেনারেল এরশাদ ক্ষমতা গ্রহন করার পর, মেজর জেনারেল আবদুর রহমান ‘ক’ অঞ্চলের (ঢাকা) সামরিক আইন প্রশাসক নিযুক্ত হন। ৮২’র শেষ দিকে অথবা ৮৩’র প্রথম ভাগে নারায়নগঞ্জ থেকে রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন শেষে ঢাকা ফেরার পথে মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনায় পতিত হন মেজর জেনারেল আবদুর রহমান। সে যাত্রায় তিনি বেঁচে যান, কিন্তু তাঁর এডিসি তরুন সামরিক কর্মকর্তা মেজর কামাল ( দৈনিক ইত্তেফাকের তৎকালীন বার্তা সম্পাদক বিশিষ্ট সাংবাদিক আসাফউদ্দৌলার মেয়ের জামাই) নিহত হন।

    পরবর্তীতে ৮৩ সালের শেষ দিকে জেনারেল এরশাদ, মেজর জেনারেল আবদুর রহমানের চাকুরী পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে ন্যাস্ত করে তাকে ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত নিয়োগ করেন এবং সেখানে যোগদানের কিছুদিন পর ৮৪ সালের কোন একসময়ে ফ্রান্সেই তাঁর মৃত্যু হয়,তাঁর মৃত্যুর সঠিক কোন কারন জানা যায়নি।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম