• শিরোনাম


    সৌদি আরবে চার দিনের ব্যবধানে ১৬ বাংলাদেশী প্রবাসীর মৃত্যু

    তাজউদ্দিন তারেক সৌদি আরব প্রতিনিধি: | ২০ এপ্রিল ২০২০ | ৯:৩২ অপরাহ্ণ

    সৌদি আরবে  চার দিনের ব্যবধানে ১৬ বাংলাদেশী প্রবাসীর মৃত্যু

    মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরবের প্রবাসী বাংলাদেশীর মৃত্যুর সারি দীর্ঘ থেকে দীর্ঘ হচ্ছে! করোনার থাবায় লন্ডভন্ড প্রবাসীদের সব স্বপ্ন চাকা। থমকে গিয়েছে জীবন পথ। প্রতিদিন নিবে যাচ্ছে নতুন নতুন জীবনের প্রদীপ। বৈশ্বিক এই মহামারী প্রতিরোধের জন্য সৌদি সরকার ইতিমধ্যেই অনেকগুলো জরুরী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। আইনেও আনছেন কঠোরতা, করোনা নিয়ে সৌদি সরকারের দিক নির্দেশনা না মানলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণাও দিয়েছে দেশটির সরকার।
    রাজধানী রিয়াদ, মক্কা, মদিনা ও জেদ্দাসহ গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোতে জারি করা কার্ফিউ অনির্দিষ্টকালের জন্য চালিয়ে যাবার ঘোষণা দিয়েছে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ আল সউদ। এবং এই প্রধান শহর গুলোতেই আক্রান্তের সংখ্যা বেশি হচ্ছে।

    গত দেড় মাস যাবৎ রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাস ও জেদ্দা কনস্যূলেটের দেয়া তথ্যমতে, করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে মোট ১৮ জন বাংলাদেশী মৃত্যু বরণ করেছেন। পাশাপাশি অবরুদ্ধ ও গৃহবন্দী অবস্থায় বেকার, অর্থ সংকট, মানসিক ও পারিবারিক দুভচিন্তাসহ নানা কারণে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে এই পর্যন্ত মারা প্রায় ৪৫ জন প্রবাসী বাংলাদেশী। শুধু গত ২৪ ঘন্টায় দেশটিতে আরো ৮ বাংলাদেশীসহ ৪দিনের ব্যবধানে মোট ১৬ জন রেমিটেন্স যোদ্ধার মৃত্যু। তার মধ্যে রয়েছেন



    ▪শফি উল্লাহ (৫২) মদিনায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তার বাড়ি চট্টগ্রাম জেলার, লোহাগাড়া উপজেলার বড়হাতিয়া ইউনিয়নে, মছনহাট এলাকা। এজাহার মিয়ার পুত্র।
    ▪ মাওলানা তাওহিদুল ইসলাম (৪৩), জ্বর, সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হয়ে নিজ বাসায় মারা যান। তার বাড়ি চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার হাশিমপুর ইউনিয়ন গ্রাম সিকদার পাড়া।
    ▪মুহাম্মদ জমির উদ্দিন (৩৫), মক্কা নগরীতে নিজ বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তার বাড়ি চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার গাছবাড়িয়া ইউনিয়নে।
    ▪মুহাম্মদ সমির (৩২), মক্কায় নিজ বাসায় ঘুমন্ত অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন। তিনি ফেনীর দলিয়া মাছিমপুর গ্রামে মাদু ভূইয়ার পুত্র।
    ▪সিরাজুল হক (৫৫) মক্কা নগরীর বাহারাত এলাকায় নিজ বাসায় মারা যান হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে। তার বাড়ি চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার রহিমানগরে।
    ▪ মোঃ আবদুল হালিম (৪৫), মৃত্যু হয় জেদ্দাস্থ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে নিজ বাসায়। তার বাড়ি বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলায়।
    ▪রমজাল আলী। জেদ্দায় নিজ বাসায় এই প্রবাসীর মৃত্যু হয়। তার তার গ্রামের বাড়ির বিস্তারিত খোজ এখনো পাওয়া যায়নি।
    ▪খোরশেদুল আলমের(৪০)।
    জেদ্দা হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে। তার বাড়ি কক্সবাজার ভারুয়াখালী ইউনিয়নে। বর্তমানে একই রোগে আক্রান্ত হয়ে তার ছোট ভাই মুহাম্মদ তারেক জেদ্দা হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসাধীন।
    ▪ আবদুল কাদির নামে আরেক প্রবাসীর
    মদিনায় মৃত্যু হয়েছে। তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতাল চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া। তার গ্রামের বাড়ির এখনো খোজ পাওয়া যায়নি।
    ▪মোশেদুল আলমের (৩৫) মৃত্যু হয়।
    জ্বর, সর্দিকাশি ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হয়ে নগরীর কিং ফয়সাল হাসপাতালে ক্কায় চিকিৎসাধীন অবস্থায়। তার বাড়ি চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের উত্তর আমিরাবাদ। সে মরহুম বাচা আহমদ মিয়ার পুত্র।
    ▪হাজ্বী আমান উল্লাহ। করোনা ভাইরাস রেগে আক্রান্ত হয়ে মক্কায় একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়। তিনি কক্সবাজার জেলার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের খারুলিয়া বাজার পাড়ার মরহুম সোলতান আহমদের পুত্র।
    ▪রেজাউল করিমের (৪০)।
    মদীনায় জ্বর, সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়ে নিজ বাসায় মৃত্যু হয় প্রবা তিনি চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার দক্ষিণ জলদী মনসুরিয়া মরহম মাওলানা সাইফুল মুল্লুকের পুত্র। তিনি মদীনার বাঙ্গালী মার্কেটস্থ প্রবাসী হোটেলের মালিক মোস্তাকের ছোট ভাই।
    ▪সৌদিতে স্ট্রোক করে নিজ বাসা প্রবাসী মকসুদুর রহমান সামির (৩২) মৃত্যু হয়। তিনি ফেনী জেলার ধলিয়া ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের ছালামত উল্যাহ ভূঁঞার ছেলে।
    ▪মদিনায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে জার্মান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রবাসী ওবাইদুর রহমান জুয়েলের (৫০) মৃত্যু হয়। তিনি চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার কানাইমাদারী গ্রামের মরহুম ছৈয়দ আহমদ চৌধুরীর মেজ পুত্র।
    ▪মক্কায় একটি হাসপাতালর জিয়াউর রহমান (৩৫) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়। তার বাড়ি কক্সবাজার জেলার উখিয়া উপজেলার পালং খালি ইউনিয়নে।
    ▪মুহাম্মদ দুলাল চৌধুরীর (৫৫) মক্কার কুবায় জ্বর, সর্দিকাশি ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত নিজ বাসায় মৃত্যু হয়। তার দেশের বাড়ি ঠিকানা এখনো পাওয়া যায়নি। এছাড়াও মদিনায় আজ্ঞাত আরেক ব্যবসায়ী রেমিটেন্স যোদ্ধার মৃত্যু হয়েছে জানা গেছে। এভাবে প্রতিদিন সৌদি-প্রবাসী বাংলাদেশিরা মারা যাচ্ছে।

    সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১০হাজার ৪শ ৮৪জন। তার মধ্যে ১হাজার ১শ ২২জন আজ নতুন করে পাওয়া গিয়েছে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৮৮৯১জন। আর সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরছেন ১৪৯০ জন। আজ নতুন ৬ জন সহ মোট ১০৩জন মৃত্যু বরণ করেন।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম