• শিরোনাম


    সোনা,রূপার ক্ষেত্রে ক্যারেট ও ভরির পরিমাপ জেনে রাখা জরুরি

    লিখেছেন: এস এম শাহনূর | ২৪ জানুয়ারি ২০২০ | ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ

    সোনা,রূপার ক্ষেত্রে ক্যারেট ও ভরির পরিমাপ জেনে রাখা জরুরি

    সোনার রাসায়নিক নাম Aurum যা
    লাতিন শব্দ Aurora থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে।
    ‘সোনা’ এমন এক ধাতু যা ছাড়া বিশ্ব অচল। অনেকেই ভাববেন টাকা ছাড়া বিশ্ব অচল কিন্তু এই টাকা বের হয় সোনার বিপরীতে। এই টাকা সংরক্ষিত সোনার চেক স্বরূপ আমরা ব্যাবহার করি।
    ধারণা করা হয়, সোনা মানুষের আবিষ্কৃত প্রাচীনতম মৌল। এমনকি নব প্রস্তর যুগেও সোনার তৈরি দ্রব্যাদি ব্যবহৃত হতো। সে যুগের খননকৃত অনেক নিদর্শনে পাথরের জিনিসের সাথে এগুলোর অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। জার্মানির বিখ্যাত সমাজতত্ত্ববিদ কার্ল মার্ক্সও সোনাকে মানুষের আবিষ্কৃত প্রথম ধাতু হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। অপরিবর্তনীয় রুপ, সহজ বন্টনযোগ্যতা এবং চকচকে প্রকৃতির জন্য এটি অনেক আগে থেকেই অর্থের প্রধান মানদণ্ড হিসেবে ব্যবহৃত হতো। সোনার সাথে পৃথিবীর অনেক বেদনা বিধুর ও ভয়ংকর কাহিনী জড়িত।

    ★ রুপা (ইংরেজি ভাষায়: Silver) একটি মৌলিক পদার্থ। এর পারমাণবিক সংখ্যা – ৪৭।নামকরণ
    এশিরীয় শব্দ “serpu” কিংবা গথ জাতির ভাষায় “silbur” থেকে সিলভার শব্দটি এসেছে যা রুপা বা রৌপ্যের ইংরেজি প্রতিশব্দ।
    সিলভারের বৈজ্ঞানিক নাম আর্জেন্টাম (argentum) শব্দটি ল্যাটিন যা সম্ভবত সংস্কৃত শব্দ আর্জেন্টা থেকে এসেছে। সংস্কৃত ভাষায় আর্জেন্টা শব্দের অর্থ “আলোর মত সাদা”।



    রুপার অস্তিত্ব সুপ্রাচীনকাল থেকেই মানুষের জানা ছিল। এমনকি প্রাচীনকালে সোনার চেয়ে রুপা দামী ছিল। কারণ সোনা মূলত মুদ্রা ও অলঙ্কার হিসেবে ব্যবহৃত হয়, কিন্তু রুপা এগুলোতে ব্যবহৃত হওয়া ছাড়াও জলপাত্র তৈরীতে ব্যবহৃত হয়। প্রাচীন মিশরে
    সোনা ও রুপার মূল্যের অনুপাত ছিল ২.৫:১।নিচের ছকটির মাধ্যমে আপনি সোনা/রূপা ওজন করার ক্ষেত্রে ভরি ও গ্রামের সঠিক পরিমাপ সহজেই জেনে নিতে পারবেন।

    ★ক্যারেট হলো খাটি সোনা যাচাইয়ের একটি একক।গ্রাম,কেজি এ সমস্ত যেমন মাপের একক-ঠিক তেমনি প্রতি ভরি সোনা ২৪ক্যারেট ধরে হিসাব করা হয় | ৯৬রতিতে হয় ১ভরি |সে হিসাবে ৯৬ কে ২৪ দিয়ে ভাগ করলে হয় ৪রতি,আর এই ৪রতি সমান ১ ক্যারেট | ২৪ক্যারেট সোনা হচ্ছে খাঁটি সোনা |
    খাঁটি সোনা কেবল বার হিসাবে পাওয়া যায় | এসব বারে সোনার পরিমাণ থাকে ৯৯.৯৯ ভাগ | তৈরি গহনার মধ্যে ২২ক্যারেট সবচেয়ে ভালো | ক্যারেট হিসাবে তাতে ২ ক্যারেট বাদ গেলে ১ আনা ২ রতি খাঁদ বা ভেজাল থাকবে | সোনা পাকাতে লাগে নাইট্রিক এসিড | আর সোনায় খাদ দিতে লাগে খাঁটি তামা, রূপা ও ব্রোঞ্জ | খাদ মেশানোরও একটা নিয়ম আছে |

    ➤২২ ক্যারেটের ১ ভরি সোনায় খাদ মেশানো থাকে ১ আনা ২ রতি।

    ➤২১ ক্যারেটের ১ ভরি স্বর্ণালঙ্কারে ২ আনা।

    ➤১৮ ক্যারেটের স্বর্ণালঙ্কারে খাদ থাকবে ভরিতে ৪ আনা |

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম