• শিরোনাম


    সিফাতুল্লাহ ওরফে সেফুদা ও নাস্তিক্যবাদীকতা: মুফতি বিনইয়ামিন আশ-আরী

    | ১৮ এপ্রিল ২০১৯ | ১:২৫ অপরাহ্ণ

    সিফাতুল্লাহ ওরফে সেফুদা ও নাস্তিক্যবাদীকতা: মুফতি বিনইয়ামিন আশ-আরী

    আমি সাধারনত কোন ভাইরাল হওয়া ব্যাক্তিকে নিয়ে কমই লেখি। কেননা এটা আমার মেজাজের বহির্ভুত কাজ। কিন্তু আজকে আমি এমন একজন
    অসাভ্যাবিক ভাইরাল হওয়া ব্যাক্তিকে নিয়ে লেখতে বাধ্য হচ্ছি যেকিনা আমার ও কোটি কোটি মুসলমানের অন্তরে তলোয়ারের আঘাত করে আমাদের নৈতিক মুল্যবোধকে ছিন্নবিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। সম্প্রতি সেফাতুল্লাহ সেফুদা নামক অষ্ট্রিয়ায় বসবাসরত মানুষিক ভারসম্যহীন একজন কট্টরপন্হী নাস্তিক আমাদের ইসলাম ও মুসলমানের ধর্মীয়গন্হ পবিত্র আল কোরআনকে অযাচিত অপমানিত করেছে। এবং সে ইসলাম ও ইসলামের মহান নবী হযরত মুহাম্মদ মুস্তফা সাঃ এর নামে এবং তার পবিত্র রওজা শরিফের নামে কুৎসাপূর্ণ ও জগন্য অকথ্য ভাষায় নোংরা গালাগালি করেছে। যা আমার লেখায় স্পষ্ট করে বলা আমার পক্ষে সম্ভব হচ্ছেনা ।

    পৃথিবীর জন্মলগ্ন থেকে অবদী পর্যন্ত আল্লাহকে অবিশ্বাসকারীগন ছিলো। ইতিহাস তাদের অবস্হাবেধ প্রমান করে যে তারা সেই সময়কার সবচেয়ে নিম্নগর্তে নিপতিত হয়েছিলো। বর্তমান বিশ্বেও নাস্তিক্যবাদী তথা নাস্তিকদের ডিম থেকে নতুন নতুন নাস্তিক্যমনাদের সূত্র ও জন্ম লাভ করছে। যারা নিজেদের নাস্তিকদাবি করলেও মূলত তাদের টার্গেট ইসলাম ই হয়ে থাকে অন্যকোন ধর্মকে নিয়ে তাদের বিষেদাগার হয়না ।



    সম্প্রতি ফেইসবুক লাইভে এসে সে নিজেকে মুসলমান দাবি করে আবার নিজেকে নাস্তিকবাদি করে পবিত্র কোরআনের উপর যে অযাচিত নোংরা ব্যবহার করেছে সে হিসাবে এই নাস্তিক হত্যাযোগ্য অপরাধ করেছে। কেননা মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে ঘোষণা করেছেন يُقَاتِلُوكُمْ فِيهِ فَإِن قَاتَلُوكُمْ فَاقْتُلُوهُمْ كَذَلِكَ جَزَاء الْكَافِرِينَ অবশ্য যদি তারা নিজেরাই তোমাদের সাথে লড়াই করে। তাহহলে তাদেরকে হত্যা কর। এটাই হল কাফেরদের শাস্তি।

    রাসুল সা: বলেন ‘যারা মুরতাদ হয়ে যাবে।’ অর্থাৎ দ্বীন ত্যাগ করবে, তারা তাওবা করে ফিরে না আসলে, ইসলামের বিধান অনুযায়ী দুনিয়ায় তাদের শাস্তি হলো হত্যা। হাদিসে এসেছে, ‘যে তার দ্বীন পরিবর্তন করে ফেলেছে, তাকে হত্যা করে দাও।’ (বুখারি)
    অতঃপর আয়াতের শেষে মানুষের পরকালের শাস্তির কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, ‘যারা সত্যকে প্রত্যাখ্যান করে মৃত্যু বরণ করবে, তাদের দুনিয়া ও পরকালের সব কর্ম নিষ্ফল হয়ে যাবে। পরকালে তারা হবে দোজখবাসী। সেখানেই তারা চিরকাল অবস্থান করবে। (নাউজুবিল্লাহ)

    সে হিসাবে এই সিফাতুল্লাহ ওরফে সেফুদাকে হত্যা করা ওয়াজিব বা ওয়াজিবুল কতল। শুধু তাইনয় যে কেউ ইসলাম ও মুসলমান ও আমাদের নবীকে নিয়ে অকথ্যভাবে এভাবে অবমানা করবে তাকে সাথে সাথে কতল করা, তাকে ফাঁসি অথবা তার গর্দান থেকে তার মাথাকে আলাদা করে দেয়া, এদেশের সরকার,আইন ও মুসলমানদের ঈমানী দায়িত্ব।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম