• শিরোনাম


    সবাইকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে ঘরে থাকার অনুরোধ ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট পরিচালকের

    রিপোর্ট অমিত হাসান অপু, স্টাফ রিপোর্টার: | ২৩ এপ্রিল ২০২০ | ৪:২৭ অপরাহ্ণ

    সবাইকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে ঘরে থাকার অনুরোধ ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট পরিচালকের

    এখন নিজের চুল নিজেই কাটি ও বাসার কাজ নিজেরাই করি বলে মন্তব্য করেছেন সিনিয়র সিস্টেম এনালিস্ট ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়(পরিচালক) মো:নজরুল ইসলাম ভূইয়া।

    তিনি বলেন গত এক মাস যাবত নিজ এলাকার সর্বসাধারণকে ফেইসবুকে ভিডিও ও লেখনির মাধ্যমে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকার উপায় সম্পর্কে মোটিবেশন বার্তা দিয়ে যাচ্ছেন।



    এক ভিডিও বার্তায় উনি বলেন যেখানে ইটালী, স্পেনসহ ইউরোপ, আমেরিকার মত উন্নত দেশগুলো করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতা থেকে নিজেদের রক্ষা করতে পারছেনা প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে ও শত শত মানুষ মারা যাচ্ছে।

    সেখানে আমাদের মত গণবসতি ও স্বল্প আয়ের দেশে এই ভাইরাস ব্যাপক মাত্রায় ছড়ালে কি পরিনতি হবে একটু ভেবে দেখেন। যেহেতু অদ্যবধি পর্যন্ত এই মহামারি করোনা ভাইরাসের কোন ভেকসিন আবিষ্কার হয়নি তাই সচেতনাই একমাত্র মুক্তির পথ।

    সকলের উচিত বিশ্ব স্বাস্হ্য সংস্হা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক যে দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে তা পুরোপুরিভাবে মেনে চলা।

    এখনও যারা কোড্ডার কেবিনে অথবা অন্যত্র জড়ো হয়ে বসে আড্ডা মারেন তাদেরকে নিজ গৃহে থাকার অনুরোধ করছি। তা না হলে চোখের সামনেই দেখতে পাবেন আপনার মা,বাবা, ভাই,বোন ও আদরের সন্তানের নির্মম পরিনতি।

    তখন চেয়ে দেখা ছাড়া আর কিছুই করার থাকবেনা।পাশাপাশি গ্রামের প্রতিটা গুষ্টিতে ২-৩ জন করে একটা টীম গঠন করে নিশ্চিত করতে হবে যাতে কেউ অন্যত্র ঘুরাফেরা না করে। বন্ধুমহল কোড্ডা-৯৬ এর সভাপতি ও বন্ধন-৯৬ এর প্রধান উপদেষ্টা ফেইসবুকের মাধ্যমে আরো বলেন, এখন নিজের চুল নিজেই কাটি।

    বাসার কাজের লোককে বেতন দিয়ে ছুটি দিয়েছি তাই বাসার কাজ নিজেরাই করি।রোগ প্রতিরোধ বাড়াতে প্রতিদিন প্রায় এক ঘন্টা করে ফ্রী হ্যান্ডস ব্যায়াম করি।সরকারের দেয়া নির্দেশনাগুলি কোন প্রকার ব্যত্তয় ছাড়াই মেনে চলি।

    আর বিত্তবানদেরকে বলছি নিজ গ্রাম ও নিকট আত্মীয় দায়িত্ব নিতে। নিজ গ্রাম ও নিকট আত্মীয়র দায়িত্ব নিলেই স্বল্প আয়ের সকল মানুষই ত্রাণ পাবে,কেউ বাদ যাবেনা। অবশ্যই সামাজিক দুরত্ব মেনে মানুষের ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌছে দিতে হবে।

    ইতিমধ্যে আমরা পারিবারিকভাবে ও সংগঠনের পক্ষ থেকে গ্রাম ও নিকট আত্মীয়র স্বল্প আয়ের মানুষদের সাহায্য করেছি। কিছুদিনের মধ্যে পুনরায় সাধ্য অনুযায়ী ইফতার ও সেহেরীর ব্যবস্হা করব। ইনশাল্লাহ একটু ধৈর্য্য ধরে মাত্র ১৫-২০ টা দিন ঘরে থাকলেই করোনার প্রাদুর্ভাব কমে যাবে।অচিরেই আমরা আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারব।

    তাই একটু কষ্ট হলেও কয়টা দিন সবাই যার যার ঘরে অবস্হানে করি। এই সুযোগে বেশী বেশী নামাজ পড়ি, নিজের পরিবার ও অন্যের জন্য দোয়া করি এবং আল্লাহর কাছে বেশী বেশী তওবা করি ও ক্ষমা চাই। আবারও অনুরোধ করছি সবাই ঘরে থাকি, ঘরে থাকি।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম