• শিরোনাম


    লকডাউনে যে আমল করতে পারেন [] আবদুল গাফফার

    লেখক : আবদুল গাফফার, শিক্ষক, কলামিস্ট, সাহিত্যিক ও সাংবাদিক | ১৭ এপ্রিল ২০২১ | ১:২৯ পূর্বাহ্ণ

    লকডাউনে যে আমল করতে পারেন [] আবদুল গাফফার

    ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে শুরু হয়েছে এক সপ্তাহের ‘কঠোর লকডাউন’। আর এ দিনই শুরু হলো মহিমান্বিত রমজানুল মোবারক। রহমত, মাগফিরাত ও মুক্তির সওগাত নিয়ে এলো
    পবিত্র রমজান। রমজানের প্রথম দশক রহমতের সাতদিনই থাকছে লকডাউন। আল্লাহ কেমন যেন কুদরতিভাবে এক সপ্তাহ আমল করার সুযোগ করে দিলেন। ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, রমজানের প্রথম ১০ দিন রহমতের, মাঝের ১০ দিন ক্ষমার এবং শেষ ১০ দিন দোজখ থেকে মুক্তির। (বায়হাকি)’।

    দুনিয়ার নানা ব্যস্ততায় ইবাদতের জন্য সময় বের করা আমাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়ে। লকডাউনে সেরকম কোনো ব্যস্ততা না থাকায় পুরো সময়টা থাকছে আমলের জন্য উন্মুক্ত।দিবা-রাত্রির প্রতিটি মুহূর্তে আল্লাহ তায়ালা মু’মিন বান্দাদের জন্য রহমত ও ক্ষমার দুয়ার উন্মুক্ত করে রেখেছেন। সে দুয়ারে প্রবেশ করতে হলে রমজান তো বটে, লকডাউনের এক সপ্তাহে নিজের জীবনকে আমলের বাগান হিসেবে সাজাতে হবে।



    আমলটা শুরু করতে পারেন কুরআন শরীফ
    খতম করার মাধ্যমে। কুরআন নাজিলের মাস রমজানে কুরআন শরীফ কয়েকবার খতম দিতে পারেন। অন্তত একবার খতম দিতে পারেন। লকডাউনের এক সপ্তাহে একবার কুরআন শরীফ খতম করা অসম্ভব কিছু নয়। যাদের সম্ভব তারা দুইবার খতম দিতে পারেন। রাসুলুল্লাহ সা. তাঁর উম্মতদের রমজান মাসে বেশি বেশি কুরআন তিলাওয়াতের দিকনির্দেশনা প্রদান করেছেন। আবার রোজা ও কুরআন শরীফ তিলাওয়াতের মধ্যে চমৎকার মিল রয়েছে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘রোজাসমূহ এবং আল-কুরআন বান্দার জন্য সুপারিশ করবে। রোজাসমূহ বলবে, হে প্রতিপালক! আমি এ ব্যক্তিকে দিনে খাবার ও অন্যান্য কামনা-বাসনা থেকে ফিরিয়ে রেখেছি। আপনি আমার সুপারিশ গ্রহণ করুন। আল-কুরআন বলবে, আমি এ ব্যক্তিকে রাতের নিদ্রা থেকে ফিরিয়ে রেখেছি। আপনি আমার সুপারিশ কবুল করুন। আল্লাহ তাদের সুপারিশ কবুল করবেন।’ (বায়হাকি, মুসনাদে আহমাদ) লকডাউনটা তাই একাগ্রচিত্তে কুরআন তিলাওয়াতের সুবর্ণ সুযোগ। পাশাপাশি নফল ইবাদত করা। হাদীস শরীফে এসেছে, ‘যে ব্যক্তি রমজানের রাতে ফরজ ইবাদত ছাড়া সুন্নত বা নফল ইবাদত করবে, তাকে এর বিনিময়ে অন্যান্য সময়ের ফরজ ইবাদতের সমান সওয়াব প্রদান করা হবে। আর যে ব্যক্তি এ মাসে কোনো ফরজ আদায় করবে, সে অন্যান্য সময়ের ৭০টি ফরজ ইবাদতের সমান পুণ্য লাভ করবে।’ (বায়হাকি)
    নফল ইবাদতের মধ্যে সালাতুল তাহাজ্জুদ, সালাতুত তাসবিহ ছাড়াও ফরজ নামাজের পরে অতিরিক্ত নফল নামাজ এবং বাকি সময়ে আল্লাহর জিকিরে মশগুল থাকা। লকডাউনের এই সময়টা আমাদের জন্য হোক ইবাদতের বসন্তকাল।

    লেখক: মক্কীনগর মাদরাসা কেরানীগঞ্জ ঢাকা।
    সম্পাদক: সবার খবর ও
    সেক্রেটারি: জাতীয় লেখক পরিষদ

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম