• শিরোনাম


    রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শেষ কোথায় ? [] মাওলানা কাওসার আহমদ যাকারিয়া

    মাওলানা কাওসার আহমদ যাকারিয়া, আলেম লেখক ও গবেষক | ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ১২:৪১ অপরাহ্ণ

    রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শেষ কোথায় ?   []  মাওলানা কাওসার আহমদ যাকারিয়া

    পৃথিবীর সর্বত্র প্রতিহিংসার অশান্তি বিরাজ করছে। প্রতিহিংসার আগুনে জলছে সমগ্র পৃথিবী। প্রতিহিংসার রাজনীতির শেষ গন্তব্যস্থান হচ্ছে- দেশজুড়ে অশান্তি সৃষ্টি করে দেশকে মহাবিপদের দিকে ঠেলে দেওয়া। যা খুবি ভয়ানক।
    প্রতিহিংসার রাজনীতির মাধ্যমে দেশে শান্তি ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। প্রতিহিংসার রাজনীতি দেশের মঙ্গল করতে পারে না।
    প্রতিহিসংসার রাজনীতি পরিহার করে জাতিকে বাঁচাতে হবে। জাতি আর প্রতিহিংসার আগুনে পুড়ে মরতে চায় না। প্রতিহিংসার রাজনীতির ধারক ও বাহক আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দল দীর্ঘ ৪৩ বছর ধরে বাংলাদেশের মানুষকে শোষণ করে পুড়িয়ে মারছে। বর্তমানে দেশে অশান্তির দাবানল জ্বলছে। যা কোনো শাস্তিকামি মানুষের কাম্য নয় এবং কোনো সুস্থ মানুষের পক্ষে এমন পরিস্থিতি মেনে নেওয়াও সম্ভব নয়। তাই আমাদেরকে ইসলামের ছায়াতলে এসে আল্লাহর রাসূলের (সা.) আদর্শ বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশে শান্তি ফিরিয়ে আনতে হবে।

    হিংসা ও প্রতিহিংসার পশু প্রবৃত্তিকে উসকিয়ে দিয়ে শয়তান মানুষে মানুষে বিভেদ সৃষ্টির মাধ্যমে পৃথিবীকে অগ্নিকুন্ডে পরিণত করে। পক্ষান্তরে আল্লাহ চান মানুষে মানুষে ভালবাসার মাধ্যমে পৃথিবীকে সুন্দরভাবে আবাদ করতে। কেননা ইতিপূর্বে জিনেরা এ পৃথিবীতে বিশৃংখলা সৃষ্টি করেছিল ও এখানে রক্তগঙ্গা বইয়ে দিয়েছিল। পরে তাদের হটিয়ে আল্লাহ আদমকে পাঠান এবং পৃথিবী পরিচালনার জন্য যুগে যুগে নবীগণের মাধ্যমে বিধান সমূহ পাঠিয়ে দেন (বাক্বারাহ ২/৩০, ৩৯)। সর্বশেষ চূড়ান্ত ও পূর্ণাঙ্গ দ্বীন হিসাবে যা ইসলামী শরী‘আত আকারে আমাদের নিকট মওজূদ রয়েছে (মায়েদাহ ৫/৩)। মানুষ যতদিন তা মেনে চলবে, ততদিন শান্তিতে থাকবে (মুওয়াত্ত্বা হা/৩৩৩৮)। না মানলে দুনিয়া জাহান্নামে পরিণত হবে। এক সময় কিয়ামত হয়ে সবকিছু নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে (ইবরাহীম ১৪/৪৮)।



    ইসলাম মানবতার ধর্ম। যা মানুষকে ক্ষমা করতে শেখায়। পক্ষান্তরে কুফর হ’ল শয়তানের ধর্ম। যা সমাজ ও সভ্যতাকে প্রতিশোধের আগুনে ধ্বংস করে। যার প্রধান টার্গেট হ’ল ‘ইসলাম’। আদর্শ দিয়ে মুকাবিলায় ব্যর্থ হয়ে তাবৎ কুফরী শক্তি এখন হিংসা-প্রতিহিংসা ও প্রতারণার রাজনীতি এবং শোষণের অর্থনীতি চালু করেছে। কোনরূপ চরমপন্থা ও অন্যায় হত্যাকান্ডকে ইসলাম সমর্থন করে না। কিন্তু ইসলাম ও মুসলমানের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে মিথ্যাচার ও যুলুম অত্যাচারকে কেউ সমর্থন করবে না। ইসলামের পক্ষে বললে তিনি সাম্প্রদায়িক। আর বিপক্ষে বললে তিনি মুক্তমনা, এরূপ একচোখা নীতি ছাড়তে হবে। মনে রাখতে হবে যে, এক হাতে তালি বাজে না। ইসলামের আবেদন মানুষের হৃদয়ে। যাকে বোমা মেরে স্তব্ধ করা যাবে না। যুলুমের প্রতিফল যালেমকে ভোগ করতেই হবে ইহকালে ও পরকালে। পক্ষান্তরে মযলূম মুমিন ইহকালে নির্যাতিত হ’লেও পরকালে সম্মানিত হবে। মুসলমান আদর্শ দিয়ে কুফরীকে মুকাবিলা করে, হিংসা বা অস্ত্র দিয়ে নয়। ইহূদী গোলাম নবীকে সেবা করেছে। কিন্তু তিনি কখনো তাকে ইসলাম কবুলের জন্য চাপ দেননি (বুখারী হা/১৩৫৬)। কারণ ইসলামের সত্য এবং কুফরীর মিথ্যা স্পষ্ট হয়ে গেছে। এক্ষণে তা কবুল করা বা না করা মানুষের এখতিয়ার। এতে কোন যবরদস্তি নেই (বাক্বারাহ ২/২৫৬)। অতএব যেকোন মুসলিম নাগরিক ও সরকারের দায়িত্ব হবে ইসলামের যথার্থ অনুসারী হওয়া এবং অন্যের নিকট ইসলামের সৌন্দর্য তুলে ধরা। না করলে তিনি আল্লাহর নিকট দায়ী হবেন। যারা সমাজের সত্যিকারের কল্যাণকামী, তাদেরকে অবশ্যই ইসলামের মহান আদর্শ মেনে পথ চলতে হবে। নইলে সরল পথ ছেড়ে বাঁকা পথে কখনো শান্তি আসবে না। আর আল্লাহর দেখানো পথই সরল পথ। এর বাইরে সবই বাঁকা পথ। যার প্রত্যেকটির মাথায় বসে আছে শয়তান (আহমাদ হা/৪১৪২)।

    পৃথিবীতে যুগে যুগে সকল অশান্তির মূলে ছিল পথভ্রষ্ট শাসকরা। আজও সেটাই আছে। আল্লাহর রাসূল (সা.) এ বিষয়ে তাঁর উম্মতকে সাবধান করে গেছেন’ (আবুদাঊদ হা/৪২৫২)। অতএব বিভিন্ন দেশে জঙ্গী জঙ্গী বলে ইসলাম ও মুসলমানকে যে দায়ী করা হচ্ছে, তার পিছনে নেপথ্য শক্তিগুলির ভূমিকা কতটুকু, তা খতিয়ে দেখা আবশ্যক। নইলে বিশ্বের সবচেয়ে সন্ত্রাসের শিকার মুসলমানরা কেন? এ পৃথিবী আল্লাহর। অধিকার এখানে সবার। অতএব সর্বাগ্রে হিংসা ও প্রতিহিংসার রাজনীতি বন্ধ করুন। পারস্পরিক ক্ষমার মাধ্যমে আস্থা ও ভালোবাসার পরিবেশ সৃষ্টি করুন। সর্বোপরি তাকদীরে বিশ্বাস রাখুন ও আল্লাহর উপর ভরসা করুন। পৃথিবীতে শান্তি ফিরে আসবে।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম