• শিরোনাম


    যশোর-২ আসনে ইসলামী ঐক্যজোটের একক প্রার্থী মাওলানা শহিদুল ইসলাম ইনসাফী

    দেবু মল্লিক | ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৩:২৯ পূর্বাহ্ণ

    যশোর-২ আসনে ইসলামী ঐক্যজোটের একক প্রার্থী মাওলানা শহিদুল ইসলাম ইনসাফী

    জাতীয় নির্বাচনের এখনো দিনক্ষণ চূড়ান্ত না হলেও যশোরে মাঠে নেমে পড়েছেন ইসলামী ঐক্যজোটের নেতাকর্মীরা। ইতিমধ্যে তারা যশোরের একটি আসনের প্রার্থী চূড়ান্ত করে প্রচার প্রচারণা শুরু করেছেন। এছাড়া আরো দুইটি আসনে প্রার্থী দেওয়ার কথা ভাবছে দলটি।
    আসছে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর জেলা ইসলামী ঐক্যজোটের সভাপতি মাওলানা শহিদুল ইসলাম ইনসাফীকে যশোর-২ আসনের প্রার্থী করা হয়েছে। ইতিমধ্যে প্রচার প্রচারণা শুরুও করেছেন দলটির নেতাকর্মীরা। ঝিকরগাছা- চৌগাছা শহরে দলীয় প্রার্থীর নির্বাচনী পোস্টার সাঁটানো হয়েছে। হ্যান্ডবিল তৈরি করে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা যাচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। এর আগে ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান যশোরে এসে শহিদুল ইসলাম ইনসাফীকে যশোর-২ আসনের দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে যান। তারপর থেকে নেতাকর্মীরা আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেন।
    সূত্র বলছে, যুদ্ধাপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামী শীর্ষ নেতাদের ফাঁসির রায় কার্যকর এবং পরে দলটির নিবন্ধন বাতিল করার পর রাজনীতিতে নতুন পরিকল্পনা করে ইসলামী ঐক্যজোট। সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে তারা ‘ইসলামী দল শুন্য মাঠ’ দখলে নিতে চায়। এজন্য আসছে নির্বাচনে দেশের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আসনে প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তাই আগে থেকেই প্রার্থীর নাম ঘোষণার পাশাপাশি প্রচারণায় নেমে পড়েছন দলটির নেতারা।
    দলীয় সূত্রে জানা যায়, ইনসাফী ছাড়াও আরো দুইজন প্রার্থীকে নির্বাচনী লড়াইয়ে নামানোর পরিকল্পনা রয়েছে দলটির। এর মধ্যে যশোর-৪ আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে জয়ী হতে নির্বাচনী ময়দানে নামতে পারেন দলটির বাঘারপাড়া শাখার সভাপতি মুফতি ইউনুচ। আর যশোর-১ আসনে আলোচনায় আছেন ঝিকরগাছা উপজেলা ইসলামী ঐক্যজোটের সভাপতি ইব্রাহিম খলিল।
    যশোর জেলা ইসলামী ঐক্যজোটের সভাপতি এবং যশোর-২ আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থী শহিদুল ইসলাম ইনসাফী বলেন, ‘আমরা দুই বছর ধরে নির্বাচনী ময়দানে আছি। আমরা জনগণের উপর আস্থাশীল। ইতিমধ্যে সাধারণ মানুষের বেশ সমর্থন পেয়েছি। যশোর-২ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য অযোগ্য নন, তবে অদক্ষ। এজন্য গত কয়েক বছরে সারাদেশে ইতিবাচক পরিবর্তন হলেও ঝিকরগাছা-চৌগাছার তেমন উন্নয়ন হয়নি। আমি নির্বাচিত হলে জনগণকে সাথে নিয়ে তাদের আকাংক্ষা অনুযায়ী উন্নয়ন করবো।’
    ইনসাফী জানান, যশোর-২ নির্বাচনী এলাকায় কওমি মাদ্রাসার সংখ্যা অনেক। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আলেম-ওলামা রয়েছেন। যারা ইসলামী রাজনীতিতে বিশ্বাসী। তাই আসছে নির্বাচনে তিনি জনগণের ভোটে জয়ী হবেন বলে আশাবাদী।

    Facebook Comments



    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম