• শিরোনাম


    মোংলা উপজেলার নামকরণ ও সর্বশেষ তথ্যচিত্র [] এস এম শাহনূর

    | ১৭ জানুয়ারি ২০২২ | ৫:০২ অপরাহ্ণ

    মোংলা উপজেলার নামকরণ ও সর্বশেষ তথ্যচিত্র [] এস এম শাহনূর

    মোংলা উপজেলার পটভূমি ও নামকরণ:

    বাংলাদেশের দ্বিতীয় সমুদ্র বন্দর খুলনা বিভাগের বাগেরহাট জেলার মোংলা উপজেলায় অবস্থিত। ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৭৬ সালে মোংলা থানা প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮৩ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর মোংলা উপজেলার সৃষ্টি হয়। ০৬টি ইউনিয়ন ০১ টি পৌরসভা নিয়ে মোংলা উপজেলার সৃষ্টি। এর আগে এটি রামপাল উপজেলার অধীনে ছিল। উপজেলার আয়তন ১৮২.১৩০ বর্গ কিমি। । সুন্দরবন এবং বাগেরহাটের মসজিদ সিটি সহ এই অঞ্চলের দুটি ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটে ভ্রমণকারী পর্যটন জাহাজগুলির জন্য মংলা একটি প্রবেশদ্বার। বাংলাদেশের দ্বিতীয় সামুদ্রিক বন্দর মংলা ও মংলা এক্সপোর্ট প্রসেসিং জোন (মংলা ইপিজেড)এর অবস্থান কিন্তু এখানেই।



    নামকরণ:
    বাংলাদেশের ঐতিয্য রয়েল বেঙ্গল টাইগার নয়নাভিরাম হরিণের বাসস্থান ও পৃথিবীর একমাত্র ম্যানগ্রোভ বনের সন্নিকটবর্তী মোংলা। কথিত আছে যে,বহুকাল আগে মঙ্গল রাজার নামানুসারে গ্রিক জাহাজের এক ক্যাপ্টেন মোংলা নামকরণ করেন।

    মোংলা পোর্ট পৌরসভা:
    বাংলাদেশের দ্বিতীয় সামুদ্রিক বন্দর মোংলাকে কেন্দ্র করে পশুরনদীর কোলঘেষে তৎকলীন চাঁদপাই ও বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়ন হতে ১৯.৪৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকার সমন্বয়ে গড়ে উঠে অপার সম্ভাবনাময় মোংলা পোর্ট পৌরসভা। নানা কারণে এ পৌরসভার গুরুত্ব অনেক। বিশেষ করে সুন্দরবন- যা পৃথিবীর সর্ববৃহত ম্যানগ্রোভ বনভূমি হিসেবে পরিচিত, প্রকৃতির এই নিঃস্বর্গভান্ডার মোংলা পোর্ট পৌরসভার কাছাকাছি হওয়ার কারণে বসন্ত ও শীত মৌসুমে অসংখ্য দেশীবিদেশী পর্যটকদের আগমনে এ অঞ্চলটি মুখরিত থাকে। তাছাড়া ভ্রমণ পিপাসুদের দর্শনীয়স্থান যেমন; হিরণপয়েন্ট, আকরাম পয়েন্ট, দুবলারচর, আলোর কোল, হারবাড়িয়া, করমজল,কটকা, কচিখালী, টাইগার পয়েন্ট, জয়মনিরঘোল, এবং সুন্দরবনের অভ্যন্তরীণ অনেক প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য দেখার জন্য বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থান হতে তথা বিভিন্ন দেশের পর্যটকগণ মোংলা পোর্ট পৌরসভা হয়ে উপরোল্লিখিত স্থানগুলো পরিদর্শন করে থাকেন। যে কারণে এ পৌরসভাটি বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল ও বিভিন্ন দেশের কাছে অনেক গুরুত্ব বহন করে।মোংলা পৌরসভা ৯টি ওয়ার্ড এবং ১৩টি মহল্লায় বিভক্ত।

    এটি একটি প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা।
    ✔ এতে রয়েছে যানজট মুক্ত প্রশস্ত রাস্তা, রাস্তার পাশে এস এস পাইপের রেলিংও সিরামিক ইটে মোড়ানো নান্দনিক ফুটপথ যা পৌরসভার শোভা বর্ধন করেছে।

    ✔উন্নত ড্রেনেজ সিস্টেমের যা পৌরসভাকে জলাবদ্ধতা হতেমুক্ত করেছে।
    ✔পৌরসভার বিভিন্ন রাস্তার পাশে পর্যাপ্ত সড়ক বাতির ব্যবস্থা রয়েছে।

    ✔পৌরসভার কোমলমতি ছেলে/মেয়েদের মানসিক বিকাশের জন্য রয়েছে একটি শিশুপার্ক।

    মোংলা বন্দর:
    এটি পূর্বে পশুর নদীর উপর চালনায় অবস্থিত ছিল। ১১ ডিসেম্বর ১৯৫৪ সালে মোংলা বন্দরকে পশুর নদী ও মংলা নদীর সঙ্গমস্থলে স্থানান্তর করা হয়।

    একনজরে মোংলা উপজেলা :
    সীমানা: উত্তরে রামপাল ও পুর্বে- মোড়েলগঞ্জ ও শরণখোলা উপজেলা দক্ষিনে সুন্দরবন ও বঙ্গপসাগর এবং পশুর নদী ও খুলনা জেলার দাকোপ উপজেলা।
    জেলা সদর হতে দূরত্ব ৫৫ কি:মি:
    আয়তন ১৮২.৭৯ বর্গ কি: মিঃ
    জনসংখ্যা ১,৭৮,৫০৩ জন (প্রায়)
    পুরুষ ৭১,৪৯২ জন (প্রায়)
    মহিলা ৬৫০০৯৬ জন (প্রায়)
    লোক সংখ্যার ঘনত্ব ৯৭৬ (প্রতি বর্গ কিলোমিটারে)
    মোট ভোটার সংখ্যা ৯৫১৬০ জন
    পুরুষভোটার সংখ্যা ৪৮২৮১ জন
    মহিলা ভোটার সংখ্যা ৪৬৮৭৯ জন
    বাৎসরিক জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩০%
    মোট পরিবার(খানা) ৩২,৩৮৩ টি আদমশুমারী/২০১১
    নির্বাচনী এলাকা বাগেরহাট-০৩ (রামপাল-মোংলা)
    গ্রাম ৮৩ টি
    মৌজা ৩২ টি
    ইউনিয়ন ০৬ টি
    পৌরসভা ০১
    এতিমখানা সরকারী ০১ টি
    এতিমখানা বে-সরকারী ০৬ টি
    মসজিদ ১৯৪ টি
    মন্দির ৪৫ টি
    নদ-নদী ০৪টি (কুমারখালী নদী, মংলা নদী, পশুর নদী ও শেহলা নদী )
    হাট-বাজার ১৪ টি
    ব্যাংক শাখা ১৩ টি
    পোস্ট অফিস/সাব পোঃ অফিস ১৮ টি
    টেলিফোন এক্সচেঞ্জ ০১ টি
    ক্ষুদ্র কুটির শিল্প ১ টি
    বৃহৎ শিল্প ৪৫ টি

    স্বাস্থ্য সংক্রান্ত:
    উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ০১ টি
    উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্র ০৬
    বেডের সংখ্যা ৫০ টি
    ডাক্তারের মঞ্জুরীকৃত পদ সংখ্যা ২৭ টি
    কর্মরত ডাক্তারের সংখ্যা ০৬
    সিনিয়র নার্স সংখ্যা ১৪ জন। কর্মরত=১৩ জন
    সহকারী নার্স সংখ্যা ০১ জন

    ভূমি ও রাজস্ব সংক্রান্ত:
    মৌজা ৩২টি
    ইউনিয়ন ভূমি অফিস ০৩ টি
    পৌর ভূমি অফিস ০১ টি
    মোট খাস জমি ১৬৯০.৬১ একর
    কৃষি ৫৪৪।৮৩ একর
    অকৃষি ১০৮একর
    বন্দোবস্তযোগ্য কৃষি ৬৩.৬৯৫০ একর (কৃষি)
    বাৎসরিক ভূমি উন্নয়ন কর(দাবী) সাধারণ=৫,৬৩৭৪৫১৯
    সংস্থা = ৩৮৬১৯১৫/-
    বাৎসরিক ভূমি উন্নয়ন কর(আদায়) সাধারণ=৩৮৬৫১৩৩,/-
    সংস্থা = ৩১৮১৬২০
    হাট-বাজারের সংখ্যা ১৩ টি

    কৃষি সংক্রান্ত:
    মোট জমির পরিমাণ ১৮,২৪২(সুন্দর বন বাদে )
    আবাদী জমি ৩৯৩৪ হেক্টর
    অনাবাদী জমি ৪৫৬১ হেক্টর
    এক ফসলী জমি ১১৪৫০ হেক্টর
    দুই ফসলী জমি ৪৫০ হেক্টর
    তিন ফসলী জমি ৫০ হেক্টর
    উৎপাদিত ফসল ৬৫২১ মে:টন
    অ-গভীর নলকূপ ২,টি
    শক্তি চালিত পাম্প ২ টি
    ব্লক সংখ্যা ০৭ টি
    বাৎসরিক খাদ্য চাহিদা ২৯৩৭৪মেঃ টন
    নলকূপের সংখ্যা ২টি

    শিক্ষা সংক্রান্ত:
    এখানকার প্রাচীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সেন্ট পলস হাই স্কুল অন্যতম। এটি ১৯৫৪ সালে ইতালীয় ধর্মপ্রচারকদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এরপর স্বাধীনতা সংগ্রামী পিতা মারিনো রিগন তার পুরো কর্মজীবনকে এর জন্য উৎসর্গ করেন এবং তাকেও মোংলায় সমাহিত করা হয়।

    সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৭১ টি
    বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৪ টি
    কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১২ টি
    জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয় ০২ টি
    উচ্চ বিদ্যালয়(সহশিক্ষা) ২২ টি
    উচ্চ বিদ্যালয়(বালিকা) ০২ টি
    দাখিল মাদ্রাসা ০৯ টি
    আলিম মাদ্রাসা ০৩ টি
    ফাজিল মাদ্রাসা ০১ টি
    কামিল মাদ্রাসা ০০ টি
    কলেজ ০২ টি
    কলেজ (মহিলা) ০১ টি
    শিক্ষার হার ৬৫%
    পুরুষ ৬৮%
    মহিলা ৬২%

    উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান: মংলা কলেজ (১৯৮১), দিগরাজ ডিগ্রি কলেজ (১৯৮৮), মংলা বন্দর স্কুল ও কলেজ (১৯৮৭), টাটিবুনিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯২৭), সেন্ট পল্স উচ্চ বিদ্যালয় (১৯৫৪), বুড়িরডাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৬১), চালনা বন্দর মাধ্যমিক বিদ্যালয় (১৯৬২), ইউনুছ আলী কলেজিয়েট স্কুল (১৯৮৫), চালনা বন্দর সিনিয়র মাদ্রাসা (১৯৬০), আদর্শ ইসলামী একাডেমি (১৯৯১)।

    যোগাযোগ সংক্রান্ত:
    পাকা রাস্তা ১০০.০০ কিঃমিঃ
    অর্ধ পাকা রাস্তা ৮.০০ কিঃমিঃ
    কাঁচা রাস্তা ১৫০ কিঃমিঃ
    ব্রীজ/কালভার্টের সংখ্যা ১৬৬ টি
    নদীর সংখ্যা ০২ টি

    পরিবার পরিকল্পনা:
    স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ১১ টি
    পরিবার পরিকল্পনা ক্লিনিক ০১ টি
    এম.সি.এইচ. ইউনিট ০১ টি
    সক্ষম দম্পতির সংখ্যা ৮৪,৮৩৩ জন

    মৎস্য সংক্রান্ত:
    পুকুরের সংখ্যা ৫০৪০ টি
    জেলের সংখ্যা ৬৪৫৫ জন
    ঘেরের সংখ্যা বাগদা- ৫৪৮০ ও গলদা- ১৫৮৫ টি মোট-৭০৬৪
    বাগদা উৎপাদন ৪০০-৪৫০ (কেজি বিঘা প্রতি) ও গলদা-৫০০-৬০০ (কেজি হেক্টির )
    সাদা মাছ উৎপাদন ৩০০০-৩৫০০ কেজি (হেক্টর) কাকড়া ৩৫০ (টি ঘের)

    প্রাণি সম্পদ:
    উপজেলা পশু চিকিৎসা কেন্দ্র ০১ টি
    পশু ডাক্তারের সংখ্যা ০২ জন
    কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্র ০১ টি
    পয়েন্টের সংখ্যা ০৩ টি
    উন্নত মুরগীর খামারের সংখ্যা ১১ টি
    লেয়ার ৮০০ মুরগীর উর্ধ্বে· ১০-৪৯ টি মুরগী আছে, এরূপ খামার অসংখ্য
    গবাদির পশুর খামার ২২ টি
    ব্রয়লার মুরগীর খামার ৯৬ টি

    সমবায় সংক্রান্ত:
    কেন্দ্রিয় সমবায় সমিতি লিঃ ০১ টি
    মুক্তিযোদ্ধা সমবায় সমিতি লিঃ ০১ টি
    ইউনিয়ন বহুমুখী সমবায় সমিতি লিঃ ০৪ টি
    বহুমুখী সমবায় সমিতি লিঃ ২২ টি
    মৎস্যজীবি সমবায় সমিতি লিঃ ১০ টি
    যুব সমবায় সমিতি লিঃ ১ টি
    আশ্রয়ন/আবাসন বহুমুখী সমবায় সমিতি ০১ টি
    পাটনি জীবি ০৬ টি
    কর্ম চারী ০১ টি
    সঞ্চয় ও ঋণ দান ২০ টি
    ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিঃ ০২ টি
    অন্যান্য সমবায় সমিতি লিঃ ০২ টি
    চালক সমবায় সমিতি ৩ টি

    মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাবলি:

    ১৯৭১ সালের ১৪ আগস্ট মুক্তিযোদ্ধারা মাইন বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জয়মনি ও লাউডোবায় পাকবাহিনীর দুটি খাদ্য ও গোলা বারুদ বোঝাই জাহাজ ডুবিয়ে দেয়।

     

    ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান: মসজিদ ১৭০, মন্দির ২৯, গির্জা ১১, মাযার ২। উল্লেখযোগ্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান: মেছের শাহ জামে মসজিদ, হরিভজন ঠাকুর মন্দির, সেন্ট পলের গির্জা।

    পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী দৈনিক: সুন্দরবন; সাপ্তাহিক: মংলা, দক্ষিণবার্তা।

    সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান: লাইব্রেরি ৫, নাট্যদল ১৪, সিনেমা হল ২, অডিটোরিয়াম ১, খেলার মাঠ ৭।

    দর্শনীয় স্থান:
    মংলা বন্দর (এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় সামুদ্রিক বন্দর), চাঁদপাই হযরত মেছেরশাহ (রঃ) এর মাজার,  সুন্দরবনের করমজল,কটকা, হারবাড়িয়া, দুবলারচর, কবি রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহর বাড়ি ও হিরণ পয়েন্ট, সুন্দরবন জাদুঘর (২০০৬), সেন্ট পলের গির্জা।

    তথ্যঋণ: উপজেলা পরিসংখ্যান ব্যুরো ও ব্যক্তিগত যোগাযোগ।

     

    লেখক: এস এম শাহনূর
    কবি ও গবেষক।

    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম