• শিরোনাম


    মুন্সীগঞ্জের চিতলিয়া মহিলা মাদরাসার ২য় দিন ব্যাপী বার্ষিক মাহফিল সম্পন্ন

    রিপোর্ট: ডা.এম এ মাজেদ | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৫:৩১ অপরাহ্ণ

    মুন্সীগঞ্জের চিতলিয়া মহিলা মাদরাসার ২য় দিন ব্যাপী বার্ষিক মাহফিল সম্পন্ন

    গত সোম ও মঙ্গলবার মুন্সীগঞ্জের চিতলিয়া জান্নাতের বাগিচা আদর্শ মহিলা মাদরাসার ২য় দিন ব্যাপী বার্ষিক মাহফিল আব্দুল হক সাহেবের
    সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়, অএ সভায় ১ম দিনে প্রধান মেহমান হিসাবে বয়ান পেশ করেন
    ঢাকা থেকে আগত আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন মুফাসিরে কোরঅান ও কওমী ওলামায়ে কেরামের সূর্য
    সন্তান হযরত মাওলালা হাফেজ নিজাম বিন বাহাউদ্দীন সাহেব,২ দিন ব্যাপি এই সভায় আরো বয়ান পেশ করেন,হযরত মাওলানা মুফতি যুবায়ের আহমদ ফরায়েজী,মাওলানা জহির বিন নুর হুসাইন,মাওলানা হাফিজুদ্দীন,মাওলানা ছিদ্দিকুর রহমান যুক্তিবাদী,মাওলানা শাহজালাল সহ ২ দিন ব্যাপী মাহফিলে আরো বহু ওলামায়ে কেরাম বয়ান পেশ করেন।

    প্রধান মেহমান তার বয়ানে বলেন প্রিয় হাজেরিন…
    আমার আজ বয়ানের বিষয় হলো,ইসলামে নারী শিক্ষার গুরুত্ব
    সুস্থ পারিবারিক, সামাজিক ও নাগরিক জীবন গঠনের জন্য প্রত্যেক মানুষের মধ্যে নৈতিকতাবোধ জাগ্রত হওয়া একান্ত প্রয়োজন। উপযুক্ত শিক্ষালাভই এ লক্ষ্য অর্জনে প্রথম পদক্ষেপ। তাই পবিত্র ইসলাম ধর্মে শিক্ষার উপর সর্বাধিক গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। মহান আল্লাহ আদি মানব হযরত আদম (স.) কে সৃষ্টি করে ধূলির ধরায় তাঁর প্রতিনিধি হিসেবে পাঠানোর পূর্বে যাবতীয় নাম শিক্ষা দিলেন (আল কোরআন-২ : ৩০, ৩১)। ঐশী গ্রন্থ পবিত্র কোরআনের সর্ব প্রথম প্রত্যাদেশ পাঠ কর, তোমার প্রতিপালকের নামে, যিনি সৃষ্টি করেছেন মানুষকে রক্তপি- হতে। পাঠ কর। তোমার প্রতিপালকের নামে, যিনি অতি দানশীল। তিনি কলমের সাহায্যে শিক্ষা দিয়েছেন; শিক্ষা দিয়েছেন মানুষকে যা সে জানত না (৯৬ : ১, ২, ৩, ৪, ৫ )। এভাবে বিশ্বপ্রভু মানুষকে সর্বাগ্রে লেখাপড়া শেখার নির্দেশ দিয়েছেন। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (স.) ও তাঁর অনুসারীদের জ্ঞানার্জনের জন্য কঠোর সাধনায় ব্রতী হতে নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, শৈশব থেকে মৃত্যু পর্যন্ত জ্ঞান অন্বেষণ কর। তিনি তাঁর আরও অনেক বাণীতে জ্ঞান সাধনার জন্য মানুষ জাতিকে অনুপ্রাণিত করে গেছেন। যেমন মহানবীর ঘোষণা : ১। যে জ্ঞানান্বেষণ করে সে আল্লাহকে অন্বেষণ করে ২। যে ব্যক্তি জ্ঞান অন্বেষণে বহির্গত হয় সে স্বগৃহে প্রত্যাবর্তন না করা পর্যন্ত আল্লাহর রাস্তায় থাকে ৩। জ্ঞান চর্চা আল্লাহর কাছে নামাজ, রোজা, হজ ও জেহাদ অপেক্ষা অধিকতর পূণ্যকর কাজ। জ্ঞান সাধকের যথোপযুক্ত মর্যাদা প্রদান করতে মহানবীর দীপ্তকণ্ঠে ঘোষণা- জ্ঞান সাধকের দোয়াতের কালি শহিদের রক্তের চেয়ে পবিত্র। এভাবে আল্লাহর রসূল উম্মী নবী মুহাম্মাদ (স.) জ্ঞান শিক্ষা, চর্চা তথা সাধনার উপর সর্বাধিক গুরুত্ব আরোপ করে গেছেন আজ থেকে ১৪০০ বছরেরও বেশি আগে মরু আরবের বুকে।
    ইসলাম শুধুমাত্র একটি আচার সর্বস্ব ধর্ম নয়। এটি বরং এক সুসংহত ও মহান জীবন বিধান। তাই ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি জাগতিক শিক্ষার উপরও গুরুত্ব আরোপ করেছে ইসলাম। মহানবীর ঘোষণা ছিল, ইহকাল পরকালের শস্যক্ষেত্র। তাই এ শস্য ক্ষেত্রের সদ্ব্যবহারের জন্য পর্যাপ্ত জাগতিক জ্ঞান আহরণ অত্যাবশ্যক। আত্মপরিচয় ও অস্তিত্ব রক্ষায় ধর্মীয় শিক্ষার গুরুত্ব যেমন অপরিসীম তেমনি উন্নত ও মর্যাদা সম্পন্ন নাগরিক জীবন গঠনের জন্য সাধারণ শিক্ষা ক্ষেত্রেও উচ্চ পর্যায়ের শিক্ষা গ্রহণ অপরিহার্য। এ প্রসঙ্গে আল্লাহর রাসূলের সে মহান বাণী অতিশয় প্রাসঙ্গিক- জ্ঞান অন্বেষণ কর, যদিও তার জন্য সুদূর চীন দেশে যেতে হয়। অর্থাৎ জ্ঞান বিজ্ঞানের উচ্চতর পঠন-পাঠনের জন্য প্রয়োজনে বিদেশ ভ্রমণ করতেও নির্দেশ করে গেছেন বিশ্বনবী (স.)।
    আর যে শিক্ষায় মানুষের কোনও কল্যাণ সাধিত হয় না, যে শিক্ষায় মানুষ পথভ্রষ্ট হয়, সে শিক্ষা ইসলামের শিক্ষা নয়। আর সঠিক শিক্ষা আমাদের মেয়েদের কে নিতে হবে।



    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম