• শিরোনাম


    মাদ্রাসায় কাদিয়ানীদের হামলা ধৃষ্টতার পরিচায়ক -মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী

    | ১৬ জানুয়ারি ২০২০ | ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

    মাদ্রাসায় কাদিয়ানীদের হামলা ধৃষ্টতার পরিচায়ক -মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী

    ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী বিবাড়িয়ায় খতমে নবুয়ত মাদ্রাসায় কাদিয়ানীদের উস্কানিমূলক হামলাকে ধৃষÍতার পরিচায়ক হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেছেন, এধরনের ভয়ংকর পরিস্থিতিতে জনগণ স্তম্বিত ও বিচলিত না হয়ে পারে না। কারণ মাদ্রাসার সাথে সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের বিশেষ সংশ্লেষ বিদ্যমান। তিনি বলেন, উম্মায়ে ইসলামিয়ার সর্বসম্মত সিদ্ধান্তক্রমে কাদিয়নীরা অমুসলিম। হাইকোর্টের শুনানীতে তারা নিজেদেরকে মুসলমান হিসেবে প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়েছে। ইসলামী পরিভাষা সম্বলিত তাদের প্রকাশিত বই-পস্তকও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তিনি হাইকোর্টের নির্দেশনা মোতাবেক সৌদি আরবসহ অন্যান্য মুসলিম-অমুসলিম দেশের মতো বাংলাদেশেও কাদিয়ানীদের অমুসলিম ঘোষণা সম্বলিত আইন প্রণয়নের জন্যে সরকারের কাছে জোর দাবি জানান।

    তিনি এক বিবৃতিতে আইডিয়েল স্কুলের ড্রেস কোড থেকে ওড়না পরিহার করার সমালোচনা বলেন, মুসলিম নারীর পরিচিতির অন্যতম উৎস ওড়না বিধায় মুসলিম জাতীয় ঐতিহ্য চেতনায় ওড়নার গুরুত্ব অপরিসীম।   ওড়না মুসলিম নারীদের পৃথক অস্তিত্ব ও স্বাতন্ত্র্যের ভিত্তি মহিলারা   নিজস্ব ধর্ম, বিশ্বাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির প্রতিফলন ঘটিয়ে ওড়না পরিধান করে ইসলামী সংস্কৃতির অনুবর্তী হওয়ার প্রয়াস চালান। ওড়না পরিধানের মাধ্যমে মুসলিম মহিলারা   নিজস্ব প্রথা-পদ্ধতি, নিয়ম-নীতি বা রীতি-রেওয়াজ অনুশীলন করার এবং ইসলামী আদর্শ ও স্বকীয়তা বজায়ে রাখার ক্ষেত্রে স্বচেস্ট থাকেন।



    তিনি অপর এক বিবৃতিতে সংসদে ধর্ষণের মতো হীন কাজ উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাওয়ায় বিস্ময়ে হতাশ, হতবাক ও ক্ষোভ প্রকাশ করে ধর্ষকদের গুলি করে হত্যার দাবি করায় সাংসদদের ধন্যবাদ জানিয়ে ক্রমবর্ধমান ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধ দমনে ইসলামী আইন সঙ্গেসার প্রবর্তনের প্রয়োজনীয়তার ওপর বিশেষভাবে গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, প্রচলিত আইন ধর্ষণ প্রতিরোধে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে। প্রচলিত আইন ভিত্তিক ধর্ষণের বিচার ব্যবস্থা দীর্ঘ মেয়াদী ও ব্যয় বহুল। পক্ষান্তরে ইসলামী আইন ভিত্তিক বিচার ব্যবস্থা দৃষ্টান্তমূলক, অপরাধ প্রতিরোধক, স্বল্পমেয়াদী ও খরচবিহীন।
    তিনি ধর্ষণসহ ক্রমবর্ধমান অপরাধ প্রবনতার পথ রুদ্ধ করতে যৌন আবেগপূর্ণ ও ভাবোদ্দীপক উপাদানগুলোর উচ্ছেদ করে ইসলামের আবেগ, বিবেক ও যুক্তি বিকাশের ধারা অব্যাহত রাখার দাবি জানিয়ে মানুষের মানসলোকে ও চেতনা রাজ্যে ইসলামী রুচিবোধ সৃষ্টির পদক্ষেপ গ্রহণের প্রয়োজনীয়তার ওপর বিশেষভাবে গুরুত্বারোপ করেন।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম