• শিরোনাম


    ভারতের নাগরীক বিল এবং হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক নিষিদ্ধের দাবীতে সম্মিলিত ক্বাওমী প্রজন্মের মানববন্ধন

    রিপোর্ট: ম. কাজী এনাম, স্টাফ রিপোর্টার | ২৯ ডিসেম্বর ২০১৯ | ১১:৫০ অপরাহ্ণ

    ভারতের নাগরীক বিল এবং হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক নিষিদ্ধের দাবীতে সম্মিলিত ক্বাওমী প্রজন্মের মানববন্ধন

    আজ ২৯শে ডিসেম্বর’১৯ রোজ রবিবার বেলা চারটায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া ক্বাওমী প্রজন্মের উদ্যোগে ভারতের বিতর্কিত আইন এনআরসি/সিএবি নাগরীক বিল-২০১৯ এবং হিউমেন মিল্ক ব্যাংক বিরুধী একটি বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে।

    সম্মিলিত কওমী প্রজন্ম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মুখপাত্র এইচ.এম. এরশাদুল্লাহ কাসেমীর সভাপতিত্বে ও সমন্বয়ক মাওঃ আশরাফুল ইসলামের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন,শাইখুল হাদীস মুফতি মুহসিনুল হাসান,মুফতী তোফায়েল আহমদ নোমান, সিনিয়র সমন্বয়ক মুফতি নিয়ামুল ইসলাম, মুফতী আশরাফুল ইসলাম বিজেশ্বরি, মুফতি হাবিবুর রহমান বগুইরী, হাফেজ মাওলা।



    মানববন্ধনে ভারতের বিতর্কিত মুসলিম বিরুধী নাগরীক আইনের নিষিদ্ধের দাবীতে বক্তব্য রাখেন ক্বাওমী প্রজন্মের সংশ্লিষ্ট অনেকেই। সকলেই স্ব স্ব বক্তব্যে ঘৃনাবোধ ও ধিক্কার জানিয়ে বলেন, এই কালো আইন কেন করা হয়েছে, আমরা জানি। ভারতকে মৌদি সরকার মুসলিম শুন্য করতে চাই। যা পৃথিবীর কোন মুসলিম মেনে নিতে পারেনা। এমন আইন একটা দেশের জন্য কলঙ্কের অধ্যায়। আমরা এই আইন বাতিলে জোড় দাবী জানাচ্ছি।

    বক্তারা আরও বলেন, ভারতের প্রতি ইঞ্চি মাটিতে মুসলিমদের রক্তের ছোঁয়া লেগে আছে, কারণ এই ভারত স্বাধীনতা অর্জন করেছে মুসলিমদের হাত ধরে। বৃটিশবিরুধী আন্দোলনে যদি মুসলিম জাতি বিশেষ করে উলামায়ে দেওবন্দ নিজেদের সর্বস্ব দিয়ে আন্দোলন না করতেন, এই ভারত স্বাধীনতার রক্তিম সূর্য উদয় হত না। ভারতকে স্বাধীন করতে মুসলিমদের অধিকার সবার আগে, এবং মুসলিমদের অবদান অনস্বীকার্য। সুতরাং বলা যায়, ভারত হলো মুসলিমদের। বের করতে হলে সবার আগে হিন্দুদের ভারত থেকে বের করে দেওয়া হউক। কারণ স্বাধীনতার আন্দোলনে অনেক হিন্দুরাই ব্রিটিশকোম্পানির হয়ে কাজ করেছে, মুসলিমরা নয়। সেই লক্ষ্যে নতুন এন আর সি নাগরীক বিল-২০১৯বাতিল করতে হবে বলে জোড় দাবী জানানো হয়।

    বক্তব্যে হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক নিয়েও সমালোচনার ঝড় তোলা হয়। সকলের দাবী, হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক একটি হারাম প্রকৃয়া। দেশব্যাপী সকল মুফতিয়ানদের মতামত হলো হিউম্যান মিল্ক ব্যাংক নাজায়েজ। একটা মুসলিম প্রধান দেশে প্রকাশ্যে এমন হারাম কাজ একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা। ইহাকে বন্ধ করতে হবে বলেও অনেকে দাবী জানান। সর্বশেষ জামিয়া রহমানিয়া বেরতলা মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা মুহসিন সাহেবের মোনাজাতের মাধ্যমে মানববন্ধন সমাপ্তি হয়

    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম