• শিরোনাম


    “ভবিষ্যৎ” (গল্পেগল্পে ধর্মানুভতি-০১) ম. কাজী এনাম

    | ০৯ মার্চ ২০১৯ | ৯:৩৮ অপরাহ্ণ

    “ভবিষ্যৎ” (গল্পেগল্পে ধর্মানুভতি-০১)  ম. কাজী এনাম

    …মি. ফুলান, আপাদত আপনি বলেন যে আপনি আপনার সন্তানদের নিয়ে এতো গর্বিত কেন?

    মি. ফুলান; ইয়েস! হোয়াই নট মি. ট্যাডি হুজুর? আই’ম সো হ্যাপি এন্ড প্রাউড ফিল এভাউট মাই ট্যালেন্টেড সন এন্ড ডট!



    হাফেজ মিনহাজ ; সরি! ট্যাডি হুজুর বললেন কেন? আমি তো একজন আল-কুরআনের হাফেজ!

    মি. ফুলান ; দ্যাটস ওয়াজ ফান হুজুর! (হি হি হি)

    মিনহাজ ; ইট’স ওকে! বাট ইউ নো আই’ম সো উইক এভাউট ইংলিশ স্পোকেন!

    মি. ফুলান; ঠিক আছে হুজুর, আপনাকে ট্যাডি হুজুর বলায় মনে কিছু নিয়েন না। পরিচিত বলে একটু জোকস করে ডাকলাম। আপনি তো আবার হুজুর হয়েও মাশাল্লাহ যতেষ্ট যুগোপযোগী এবং টেকনোলোজি অনেক জ্ঞানই রাখেন! সেই জন্যেই মূলত ট্যাডি হুজুর বলা। মাইন্ড করলে আর বলবো না!

    মিনহাজ ; নাহ, ঠিক আছে! দুয়েক বার ফানিং এমন শব্দ ব্যবহার করাই যেতে পারে, সব সময় না। বাই দ্যা ওয়ে, আপনার ছেলে এবং মেয়ের জন্য গর্বিত হবার যৌক্তিক কয়েকটা কারন দেখান ত(?)

    মি. ফুলান; যৌক্তি দেয়ার কিচ্ছুই নাই! সবটাই যুক্তিযুক্ত! এদের ব্রাইটনেস ফিউচার দেখেছেন? আরে হুজুর, মেয়েটা যদি মেডিকেল কোর্সটা শেষ করে, সাথে সাথেই জার্মান পাঠিয়ে দেবো। সেখান থেকে মেডিকেল সাইন্সের উপর উচ্চতর ডিগ্রী। অতঃপর গর্বের সাথে এদেশে এসে মানুষের সেবা করবে, সম্মান আর টাকা দুইটি একই সাথে কামাইবে! গর্ব ত করতেই হয়। আর মাত্র দের বছর!

    মিনহাজ; ও! আর ছেলে?

    মি. ফুলান; ছেলেটাও এ বছর ঢাবিতে এডমিশন নিলো! ওর পেছনের রেজাল্ট ব্যাকগ্রাউন্ড খুবই ব্রাইটফুল। ফিউচারে বিসিএস একশভাগ আশা করা যায়!

    মিনহাজ; ফিউচার বলতে আপনি কি বুঝাতে চাচ্ছেন?

    মি. ফুলান; ভবিষ্যত!

    মিনহাজ; অর্থনীতির ভাষায় কিন্তু ভবিষ্যত বলতে কিছু নেই! তাও আপনি অনাগত ভবিষ্যত নিয়ে আপনার ছেলে-মেয়ের উপর ভিষণ খুশি?

    মি. ফুলান; এসব উক্তি অযোক্তিক!

    মিনহাজ; ঠিক আছে! তবে ভবিষ্যত বলতে আপনি কতোদূর ভবিষ্যতের কথা ভাবছেন? জীবনের শেষ দিকটা??

    মি. ফুলান; ভবিষ্যত বলতে ত এটাই বুঝায়? নাকি?? আচ্ছা তুমি এমন উদ্ভট টাইপের প্রশ্ন করতেছো কেন?

    মিনহাজ; মাইন্ড করবেন না, প্লিজ। উদ্ভট বলতে কিচ্ছুই নেই। আসল কথায় আসতেছি। ধৈর্য্যের সাথে শুনুন! ভবিষ্যত বলতে কিন্ত জীবনের শেষ দিকটাই শুধু নয়! জীবনের ইতি হয়ে যাওয়ার পর যে অনন্তকালের জীবন আসে, সেটাই আসল ভবিষ্যত! আপনি সেই অদূর ভবিষ্যতের জন্য ছেলেমেয়েদের জন্য কি করেছেন? যা নিয়ে গর্ব করা যায়!

    মি. ফুলান; (ফিকে হেসে) সেটা ত আছেই হুজুর! বুঝলাম আপনি কি বলতে চাচ্ছেন!
    মিনহাজ; বুঝেন নাই। বুঝলে, আপনার ছেলে মেয়ের সেই ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত থাকতেন!

    মি. ফুলান; এটা ত সময় আছে, করা যাবে। তেমন সময় লাগবেনা।
    মিনহাজ ; বুঝিনি! সময় আছে মানে? জীবনের শেষ বয়সে কি করবে? যৌবনকাল যদি এমনিতে যায়, বৃদ্ধ হলে ত আরও খারাপ যাবে?

    মি. ফুলান; (রাগত স্বরে) কেমনে গেছে? আপনি কি জানেন?

    মিনহাজ; গত জুম’আর নামজের আগে দেখলাম আপনার ছেলে পুকুরপাড় বসা, নামাজ থেকে ফেরার পথেও একই জাইগায় পেলাম! যে ছেলে জুম’আর নামাজ পড়তে মসজিদে যায়না, সে পাচওয়াক্ত নামাজের জন্য মসজিদে না যাওয়াই যুক্তিযুক্ত। আর এমন বেনামাজি ছেলের ভবিষ্যত আর যায়ই হউক, ব্রাইট নয়। আর আপনার মেয়ের ব্যাপারে আমি এক্সুয়েলি কিচ্ছু জানিনা। তবে একদিন মোড়ের দোকানের সামনে একদিন আপনার মেয়ের ব্যপারে সমালোচনা করতে শুনলান।

    মি. ফুলান; কি সমালোচনা হুজুর? কারা করেছে??

    মিনহাজ; আগে বলুন আপনার মেডিকেল পড়ুয়া মেয়ে এলাকায় কি টাইপের ড্রেস পড়ে চলাফেরা করে? আর সামাজিক ও ধর্মীয়ভাবে সেগুলো কতোটা শালিন?

    মি. ফুলান; এটা যে কারো ব্যক্তিগত রুচি।

    মিনহাজ; ব্যক্তিগত রুচি-অরুচি আমি বুঝিনা। অশালীন জামা-কাপড় অশালীনই। আর যে মেয়ের জামা-কাপড় অশালীন হয়, আটশাট হয়, পাতলা হয়, শর্ট হয়, তার অন্যান্য আচরন যে অশালীন না, সেটা কেউ-ই বলবেনা। আর যার আচরণ অশালীন হয়, তার অদূর ভবিষ্যত অন্ধকার।

    মি. ফুলান; আধুনিক মেয়েরা একটু স্টাইলিশ হয়ই।

    মিনহাজ ; তাই বলে ধর্ম ও সামাজিকতা ধ্বংস করে?
    আচ্ছা, আপনি কি ছেলেমেয়েক কুরআন পড়া, নামাজ পড়া, দ্বীনের মৌলিক অন্যান্য কাজগুলো শিখিয়েছেন?

    মি. ফুলান; (মাথা নিচু করে) ওদের ছোট সময় একজন হুজুর রাখছিলাম, কায়দা শেষ হবার পর হুজুর চলে গেছে। আর নতুন করে হুজুর রাখা হয়নি। আর মক্তবেও দিতে পারিনি প্রাইভেট ও স্কুলের চাপে। তারপর আর সময় হয়নি।

    মিনহাজ; বাবা হিসেবে আপনি অযোগ্য। আপনি একজন অপরাধী বাবা। ছেলেমেয়ের ভবিষ্যত নিয়ে ভাবছেন, আর দুনিয়ার সকল শিক্ষার ব্যবস্থা করলেও আখেরাতের শিক্ষা দিতে পারেননি। প্রাউড ফিল না করে আপসেড ফিল করেন!

    মি. ফুলান; (ছলছল চোখে তাকিয়ে) এখন কি আর এসব করা সম্ভব?

    মিনহাজ ; অবশ্যই সম্ভব। তবে এখন এসব করতে হলে আপনাকে অনেকটা বেগ ফুহাতে হবে। তবুও ট্রাই ইট… প্লিজ! ওদের অনন্তকালের ভবিষ্যত ছিল আপনার হাতে, আপনি গড়ে দেননি। আপনার নামাজে জানাযায় অংশ নেয়ারও যোগ্যতা তাকে দিতে পারেননি, এটা আপনার ব্যার্থতা। তবে এখনো সময় আছে, হয়তবা অসময়ে এসেও এদের সংশোধন করা সম্ভব হবে। আর না হলেও কি, আপনি ত দায়িত্বমুক্ত হলেন! মনে রাখবেন, ক্যারিয়ার গড়ায় ধর্মীয় মূল্যবোধ কোন ভাবেই বাধার সৃষ্টি করেনা। বরং একজন ধর্মীয়ান উচুমাপের ব্যক্তিত্ব দ্বারা দেশ-জাতি ও সমাজের উন্নয়নে কমপক্ষে (তুলনামূলক) দশগুণ বেশি কাজ হয়। একজন প্রকৃত ধর্মীয়ান নামাজের মতই নৈতিকতার মুল্যায়ন করে, দুর্নীতি মুক্ত থাকে, নেশামুক্ত থাকে, সেই সাথে দেশ-জাতি ও সমাজের সবাইকে সকলপ্রকার কালোবাজারি থেকে মুক্ত রাখতে চেষ্টা করে। রাখে দেশ গড়ায় বিরাট অবদান। সুতরাং উচ্চ শিক্ষিত বানান ঠিক আছে, ধর্মীয়ান বানান আগে। তবেই না হয় মনঃপ্রাণ দিয়েই গর্ব করতেন।
    মি. ফুলান; তোমার কথাগুলো যৌক্তিক। চেষ্টা করবো নিজেদের সংশোধন করার। দোয়া করিও।

    মিনহাজ ; আমার জন্যেই দোয়া করবেন। আল্লাহ আপনার সহায় হউক। আল্লাহ হাফেজ।

    মি. ফুলান; আল্লাহ হাফেজ।
    (উভয়েই প্রস্তান)

    #স্টরি কন্সেপ্ট; ম. কাজী এনাম.
    বিএসএস অনার্স(অর্থনীতি), ডাবল এমএ (হাদিস),
    সিনিয়র উস্তাদ, জামিয়া কুরআনিয়া কাজীপাড়া, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া।

    Facebook Comments

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম