• শিরোনাম


    ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আওয়ামী লীগের এক পক্ষের সংবাদ সম্মেলন পুলিশের বাধাই পণ্ড

    রিপোর্ট: মুফতী মোহাম্মদ এনামুল হাসান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি | ০৭ অক্টোবর ২০১৯ | ৪:২৩ পূর্বাহ্ণ

    ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আওয়ামী লীগের এক পক্ষের সংবাদ সম্মেলন পুলিশের বাধাই পণ্ড

    ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পুলিশ আওয়ামী লীগের এক পক্ষের সংবাদ সম্মেলনে বাধা দিয়ে পণ্ড করে দিয়েছে।

    রবিবার দুপুরে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও সদর আসনের প্রয়াত সংসদ সদস্য, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বঙ্গবন্ধুর অন্যতম সহচর এডভোকেট লুৎফুল হাই সাচ্চুর বাসভবনে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের সাবেক সচিব মুক্তিযোদ্ধা মিজানুর রহমান ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল আলমের নেতৃত্বাধীন জেলা আওয়ামী লীগের একটি পক্ষ এই সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে।



    সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য আমানুল হক সেন্টু লিখিত বক্তব্য পাঠ করার সময় সদর উপজেলা ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবিএম মশিউজ্জামান, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহম্মদ সেলিম উদ্দিন, ওসি তদন্ত আতিকুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল সাংবাদিক সম্মেলনে প্রবেশ সাংবাদিকদের সামনেই বাধা দিয়ে মাইক কেড়ে নেয়। সাংবাদিক সম্মেলনের অনুমতি নেই বলে তারা সেটি বন্ধ করতে বলেন। সাংবাদিক সম্মেলনে অনুমতি কিসের অনুমতি লাগে এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বাদানুবাদ চলে। সৃষ্টি হয় তুমুল উত্তেজনা।

    একদিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাংবাদিক সম্মেলন করার অনুমতি নেই, অন্যদিকে অপরপক্ষও একই স্থানে সংবাদ সম্মেলন করার ঘোষণা দিয়েছে। এতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে বলে নেতাদের সাংবাদিক সম্মেলন বন্ধ করতে বলেন। পরে পুলিশের বাধায় আওয়ামীলীগের নেতারা সাংবাদিক সম্মেলন বন্ধ করতে বাধ্য হন।

    এ সময় সংবাদ সম্মেলনের এলাকার বাহিরে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল ও সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন শোভনের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সংবাদ সম্মেলনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। এর আগে, একইদিন সকালে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক লুৎফুল হাই সাচ্চুর বাসার প্রবেশমুখে অর্ধশতাধিক পুলিশ পুলিশ অবস্থান নেয়।

    সংবাদ সম্মেলনে সদর, বিজয়নগর ও পৌরসভা আওয়ামীলীগের সম্মেলনে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল আলম, জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমানুল হক সেন্টু, জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও সাবেক মেয়র হেলাল উদ্দিন, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিনারা আলম, জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি কাউসার আহমেদের বিরুদ্ধে বহিষ্কারের প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়। এর জবাব দিতেই তারা এই সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন।

    এ সময় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব মিজানুর রহমান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি শফিকুল আলম এমএসসি, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান ওলিও, জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র হেলাল উদ্দিন, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিনারা আলম, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি কাউসার আহমেদ, আওয়ামীলীগ নেতা কাজী মোবারক হোসেন, বাসুদেব ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নেছার উদ্দিন শেরশাহ, রামরাইল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. সেলিম প্রমুখ। সংবাদ সম্মেলনে কয়েক’শ নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম