• শিরোনাম


    বিশ্ব ভালবাসা দিবস খৃষ্টানদের কালচার, মুসলমান পালনকারীর ঈমান ধ্বংসের ক্যানসার

    লেখক: মাওলানা কাওসার আহমদ যাকারিয়া | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৯:৪২ অপরাহ্ণ

    বিশ্ব ভালবাসা দিবস খৃষ্টানদের কালচার, মুসলমান পালনকারীর ঈমান ধ্বংসের ক্যানসার

    এদিকে বিশ্ব ভালবাসা দিবস, রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি কোন দিবস না হলেও সামাজিকভাবে অতি প্রাচীন কাল থেকে এটি প্রতিষ্ঠিত একটি দিবস। এ দিবসটির ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায় এর বয়স ১৭৩৯ বছর হলেও ‘বিশ্ব ভালবাসা দিবস’ নামে এর চর্চা শুরু হয় সাম্প্রতিক কালেই। ২৭০ সালের চৌদ্দই ফেব্রুয়ারির কথা। তখন রোমের সম্রাট ছিলেন ক্লডিয়াস। সে সময় ভ্যালেন্টাইন নামে একজন খৃষ্টান সাধু, তরুণ প্রেমিকদেরকে গোপন পরিণয় মন্ত্রে দীক্ষা দিত। এ অপরাধে সম্রাট ক্লডিয়াস সাধু ভ্যালেন্টাইনের শিরচ্ছেদ করেন। তার এ ভ্যালেন্টাইন নাম থেকেই এ দিনটির নাম করণ করা হয় ‘ভ্যালেন্টাইন ডে’ যা আজকের ‘বিশ্ব ভালবাসা দিবস’।

    বাংলাদেশে দিবসটি প্রবর্তন করেন পাশ্চাত্য শিক্ষায় শিক্ষিত সাংবাদিক শফিক রেহমান। ১৯৯৩ সালে যায়যায় দিন পত্রিকায় আলোচনার মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রথম বিষয়টির আত্মপ্রকাশ ঘটে।
    সাংবাদিক সফিক রেহমান যেহেতু পাশ্চাত্য শিক্ষায় শিক্ষিত ছিলেন তাই তার পরিকল্পনা ছিল বাংলাদেশে ইউরোপ, আমেরিকা, বৃটেনের মত চরিত্রহীন অসামাজিক অশ্লীলতার কালচার বাস্তবায়ন করতে। কিন্ত বাংলাদেশে ৯৯% মুসলমান ধর্মপ্রাণ হওয়া ও দেশে হক্কানী উলামায়ে কেরাম সজাগ দৃষ্টিপাতের কারণে ইসলাম বিদ্বেষীদের পরিকল্পনা বৃথাই হয়ে গেল।



    মুসলমানদের জন্য এ দিবসটি পালনীয় নয়। যদি কোনো মুসলমান এ দিবসটি পালন করে তাহলে বিজাতীয় খৃষ্টানদের ভালবাবাসা নামক অশ্লীলতাকে সমর্থন করাহয়। যা ইসলামী শরীয়তে এ ধরণের কুসংস্কার অশ্লীলতা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

    ভালবাবাসা বলতে ‘ইসলাম আমাদের কী শিক্ষা দেয়।
    হাদিস শরীফে হযরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন- যে ব্যক্তি বড়দেরকে শ্রদ্ধা করেনা, ছোটদেরকে স্নেহ করেনা, এবং আলেমদেরকে তাযীম ইজ্জত সম্মান করেনা সে আমার উম্মতের অন্তর্ভুক্ত না। মুসলমানদের পুরো জিন্দেগী সবসময় ভালবাবাসা দিয়ে ভরপুর। শুধু নির্দিষ্ট করা একদিনের জন্য ভালবাবাসা ইসলাম সমর্থন করেনা।

    ইসলামী শরীয়াতে এর কোন বৈধতা নেয়, বরং রীতিমত এটি ইসলামী শরীয়াতের সাথে সাংঘর্ষিক।

    ‘ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা আর ভালবাসা এরই একটি অংশ। সে হিসেবে ভালবাসা শব্দটি কারো অপরিচিত নয়। উগ্রবাদী ও সমাজতান্ত্রিকবাদীরা ১৪ ফেব্রুয়ারীকে বিশ্ব ভালবাসা দিবসটি উদযাপন করে। তাদের উদ্দেশ্য একজন নারী তার সারা জীবনের লালিত স্বপ্ন তথা ইজ্জত স্বেচ্ছায় নষ্ট করা। একশ্রেণির উগ্রবাদী যুবক অপেক্ষমান থাকে কখন সেই দিনটি আসবে আর একজন অবলা নারীর সতিত্ব সে কেড়ে নিবে।

    এ দিবসটি তো ইসলামী সংস্কৃতি তো দুরের কথা এটি ইসলামের সাথে রীতিমত সাংঘর্ষিক বটে। আমরা যারা মুসলমান আমাদের প্রতিটি ক্ষনেই ভালবাসার। সর্বোপরী এ দিবসটি ইহুদী খ্রীষ্টান ও রোমানদের। এটি কখনো মুসলমানদের দিবস হতে পারে না, তাই এটি পালন করার কোনো বিষয় নয়।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম