• শিরোনাম


    বাদশার করুণ পরিণতি [] মাওলানা কাওসার আহমদ যাকারিয়া

    মাওলানা কাওসার আহমদ যাকারিয়া, অতিথি লেখক | ১২ মে ২০২০ | ৬:২৯ অপরাহ্ণ

    বাদশার করুণ পরিণতি  [] মাওলানা কাওসার আহমদ যাকারিয়া

    এক বাদশা নিজ মহলে ঘুমিয়ে ছিলেন। হঠাৎ অর্ধ রাতে তিনি জাগ্রত হলেন, তখন তার নিজ ধন সম্পদের ভান্ডার দেখার আগ্রহ জাগলো। তাই তিনি তৎক্ষণাৎ চাবি নিয়ে খাযানার দরজা খুলে তথায় গচ্ছিত ধনভাণ্ডার সোনা রুপা মনি-মুক্তা দেখতে লাগলেন। আর মনে মনে বলতে লাগলেন, এসব ধন রত্ন তো আমার দশ পুরুষের জন্য যথেষ্ট। আল্লাহর নিকট বাদশার এই খেয়াল পছন্দ হলো না। তাই মানুষের শিক্ষার জন্যে আল্লাহর কুদরত প্রকাশ পেল। ঘটনাক্রমে উজির সাহেবও অর্ধ রাতে জাগ্রত হলেন এবং ভাবলেন, আমি যে আসরের সময় খাযানার দরজা খুলছিলাম দরজা বন্ধ করেছি কি না তাতো আমার জানা নাই। তাই উজির সাহেব সন্দেহ দূর করার জন্য খাযানায় গেলেন। গিয়ে দেখেন খাযানার দরজা খোলা তিনি ভিতরে প্রবেশ না করে বাহির থেকে খাযানার দরজা বন্ধ করে দিলেন। ভিতরে যে বাদশা আছে তা তিনি ক্ষুণাক্ষরেও জানতেন না। তালা লাগিয়ে উজির চলে গেলেন। ফলে বাদশা ভিতরে পড়ে রইলেন। পরদিন সকাল বেলায় যখন বাদশাহ দরবারে আসলেন না তখন উজির সাহেব মহলে সংবাদ পাঠালেন কিন্তু মহল থেকে বলা হল, বাদশা অর্ধ রাতে মহল থেকে বাহিরে গেছেন। আমাদের জানা নাই তিনি কোথায় আছেন। অবশেষে অনেক খোজা খুজির পরেও বাদশাহর কোন সংবাদ পাওয়া গেল না। এ দিকে বেচারা বাদশা দীর্ঘদিন পর্যন্ত খাওয়া দাওয়া না পেয়ে ক্ষুধায় পিপাসায় ছটফট করতে করতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লো। পনেরো বিশ দিন পর যখন খাযানা খোলা হল তখন বাদশাহকে মৃত অবস্থায় খাযানার ভিতরে পাওয়া গেল। সাথে একটি চিরকুটও পাওয়া গেল। যাতে লেখা ছিল, যে ব্যক্তি দুনিয়ার ধন সম্পদের সাথে মন লাগাবে তার মৃত্যুও এমন হবে যেমন আমার হয়েছে।

    [সূত্র: তাবলীগের অন্যতম আমীর হযরত মাওলানা মুফতী ইউসুফ (রহ.) এর বয়ান থেকে সংগৃহীত বা শাহনামা হুসনে আখলাক-১৯৯৩ প্রকাশিত হয়েছে ]



    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম