• শিরোনাম


    নবীনগরে সাপের কামড়ে প্রাণ গেলো সৌখিন সাপুড়ের !

    নবীনগর প্রতিনিধি | ৩০ জুলাই ২০১৯ | ৫:১১ অপরাহ্ণ

    নবীনগরে সাপের কামড়ে প্রাণ গেলো সৌখিন  সাপুড়ের !

    ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার জিনদপুর বাজারের সার-বীজ বিক্রেতা মো: আলম মিয়া।তিনি একজন সৌখিন সাপুড়ে ও বটে।এলাকার অাসে-পাসে যেখানেই সন্ধান পান সাপের,সেখানেই ছুটে যান অালম মিয়া।তিনি সাপ ধরেন,লালন পালন ও করেন। গতকাল রবিবার বিকেলে সাপের তথ্য পেয়ে জিনদপুর ইউনিয়নের নীলনগর গ্রামে ছুটে গিয়েছিলেন সাপ ধরতে। সাপ ধরার পর বাচ্চাদের খেলা ও দেখাতেন তিনি।
    গতকালও এর ব্যাতিক্রম হয়নি।খেলা দেখানোর এক পর্যায়ে অসাবধানতা বসত ওই সাপটির ছোবল খায় আলম মিয়া।
    এর অাগেও বেশ কয়েকবার সাপ ধরতে গিয়ে ছোবল খান তিনি। কিন্তু ঐসময় সাপের কামড়ে তার কোনো ক্ষতি হয়নি।
    তাই এবারো সাপের কামড়ের বিষয়টি অবজ্ঞা করে চিকিৎসার সম্মুখীন হননি।
    কিন্তুু এবার ছোবল দেবার পর বিষক্রিয়া ছড়িয়ে পরে তার দেহে। অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসা নিতে রবিবার (২৮ জুলাই) রাত ১০ঘটিকায় প্রথমে কুমিল্লা নেওয়া হয়।সেখানে অবস্থার অারো অবনতি হলে ঢাকা যাওয়ার পথে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

    সাপের কামড়ে নিহত আলম মিয়ার (৪৮) পৈত্রিক নিবাস গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম জিনিয়া গ্রামে। তিনি নবীনগরের শিকানিকা গ্রামে এক যুগের বেশি সময় ধরে মেম্বার জহিরুল ইসলাম ও কাজেল্লা গ্রামের ব্যবসায়ী শাহীন কাজলের বাড়িতে বসবাস করে অাসছিলেন এবং তার অর্থায়নে ও সহযোগীতায় ৮ শতাংশ জায়গায় সাপের খামার গড়ে তোলে পরিচালনা করে আসছিলেন। এই খামারে শতাধিক সাপ সংগ্রহ করে লালনপালন করা হচ্ছে বলে জানা যায়।



    এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা সাংবাদিকদের জানান,নবীনগরে সাপের খামার আছে,এমনটি জানা নেই! ঘটনাটি দুঃখজনক, সাপের খামার একটি লাভজনক ও বিপদজ্জনক কাজ। আমি নিজে ওই স্থান পরিদর্শন করবো।

    পরে সাতমোড়া ইউনিয়নের দশমৌজা ঈদগাহ মাঠে জানাযা শেষে দাফনের জন্য আলমের নিজ বাসস্থনে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয়েছে ।

    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম