• শিরোনাম


    ড.ইউনূসের নেতৃত্বে নাগরিক পর্যবেক্ষণ কমিটি ঘটন করার আগ্রহ ড.কামাল হোসেনের

    | ১৬ নভেম্বর ২০১৮ | ২:৫৬ পূর্বাহ্ণ

    ড.ইউনূসের নেতৃত্বে নাগরিক পর্যবেক্ষণ কমিটি ঘটন করার আগ্রহ ড.কামাল হোসেনের

    EnglishEnglish
    গজ্জ
    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যেন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়, সেজন্য জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনের পরিকল্পনায় একটি নাগরিক পর্যবেক্ষণ প্ল্যাটফর্ম গঠিত হচ্ছে। এই নাগরিক প্ল্যাটফর্মের আহ্বায়ক হচ্ছেন শান্তিতে নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস। জানা গেছে, ড. কামাল হোসেনই ইউনূসকে এই বিষয়ে রাজি করিয়েছেন।

    ড. কামালের ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে, এই প্ল্যাটফর্মে সদস্য থাকতে পারে ১০০ থেকে ১৫০ জন। নির্বাচনে সকল রাজনৈতিক দলগুলোর আচরণ বিধি থেকে শুরু করে সর্বশেষ ভোটের ফলাফল পর্যন্ত পর্যবেক্ষণ করবে নাগরিক কমিটি।



    ইউনূস ছাড়াও কয়েকজন আইনজীবী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিবৃন্দরাও এই প্ল্যাটফর্মে থাকছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার, সিপিবি’র ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, অধ্যাপক রেহমান সোবহান, ব্যারিস্টার শাহদীন মালিক, হোসেন জিল্লুর রহমানসহ সমাজের বিভিন্ন পরিচিত মুখ।

    জানা গেছে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট যখন নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তখন থেকেই ড. কামাল হোসেন বিভিন্নভাবে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের নির্বাচনের প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত করার পরিকল্পনা নিচ্ছিলেন। এছাড়াও নির্বাচনে মনোনয়নের ব্যাপারে সুশীল সমাজের অন্তত ১০ জন প্রতিনিধিদের সুপারিশ করেছিলেন তিনি।

    একাদশ জাতীয় নির্বাচনে প্রধান ৫টি বিষয় পর্যবেক্ষণ করবে নাগরিক কমিটি। সেগুলো হলো:

    ১. তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচনের ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন কতোটা নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করছে, সেটি পর্যবেক্ষণ করবে তারা।

    ২. মনোনয়ন দাখিলের পর লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড ঠিকমতো কার্যকর হচ্ছে কিনা সেটিও দেখবে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম।

    ৩. নির্বাচনের আগে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সদস্যদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা বা হয়রানি করা হলে, তাঁর আইনগত প্রতিকার এই প্ল্যাটফর্ম থেকে দেওয়া হবে।

    ৪. নির্বাচনে সরকার ও প্রশাসন কতটুকু নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে, কোনো পক্ষপাত হচ্ছে কিনা সেটি পর্যবেক্ষণ করবে এই নাগরিক কমিটি।

    ৫. ভোটের আগে ভোটারদের ভয়-ভীতি প্রদর্শন, ভোটারদের ভোটদানে বাঁধা দেওয়া হচ্ছে কিনা সেটিও দেখবে নাগরিক কমিটি।

    এছাড়া রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনের আচরণ বিধির ওপর কতোটুকু শ্রদ্ধাশীল, তারা ঠিকমতো আচরণ মানছেন কিনা সে বিষয়গুলো নাগরিক কমিটি পর্যবেক্ষণ করবে। ভোটের ফলাফল সঠিকভাবে ঘোষণা করা হচ্ছে না সেটিও পর্যবেক্ষণ করবে নাগরিক কমিটি। এছাড়া সাধারণ ভোটারদের জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষে উদ্বুদ্ধ করার বিষয়েও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে নাগরিক কমিটি।

    বাংলা ইনসাইডার/জেডআই/জেডএ

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম