• শিরোনাম


    টিভিতে সম্প্রচারিত নামাজের অনুসরণে নামাজ পড়ার বিধান : মুফতি ছালেহ বিন আব্দুল কুদ্দুস

    মুফতি ছালেহ বিন আব্দুল কুদ্দুস, অতিথি লেখক | ২১ এপ্রিল ২০২০ | ১২:৪৫ অপরাহ্ণ

    টিভিতে সম্প্রচারিত নামাজের অনুসরণে নামাজ পড়ার বিধান : মুফতি ছালেহ বিন আব্দুল কুদ্দুস

    তারাবীহ নামাজের ব্যাপারে সম্প্রতি বাংলাদেশের একজন এমপি’র ভুল সিদ্ধান্তকে ঘিরে ধর্মীয় মহলে সমালোচনার ঝড় ওঠেছে। গণমাধ্যমের রিপোর্ট: ‘‘ আসন্ন রমজানে তারাবি নামাজ মসজিদের পরিবর্তে বাসায় আদায়ের ব্যবস্থা করতে এলাকার মুসল্লিদের জন্য সরাসরি টেলিভিশনে তারাবি নামাজ সম্প্রচারের উদ্যোগ নিয়েছেন ঢাকা-৯ আসনের সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী। শনিবার (১৮ এপ্রিল) রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এক লাইভে এসব কথা জানান তিনি। আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, আমরা এমন একটা সময়ে আছি যখন মসজিদে নামাজ আদায় করতে পারছি না। সৌদির গ্র্যান্ড মুফতিও মানুষজনকে ঈদ এবং তাবারীর নামাজ বাড়িতে আদায় করতে বলেছেন। আমরাও এ ব্যাপারে আগাম চিন্তা করে রাখছি। তিনি বলেন, আমার এলাকায় বড় ক্যাবল নেটওয়ার্ক যারা আছে, তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। আসন্ন রমজানে আমরা টেলিভিশনে সরাসরি তারাবী নামাজ সম্প্রচার করবো। এলাকায় যারা আছেন, বাড়িতে বসে যদি টেলিভিশনের মাধ্যমে ইমামকে ফলো করতে চান, সেভাবে আদায় করতে পারবেন ।’’ -(আগামীর বার্তা, Apr 19, 2020)
    আমাদের ধারণা, ধর্মীয় আবেগ থেকেই তিনি এ কথা বলেছেন। কিন্তু মূল সমস্যা হলো, যে কোন বিষয়ের পারদর্শী ব্যাক্তিই সেক্ষেত্রে কথা বলার অধিকার রাখেন। অনভিজ্ঞ কেউ মুখ খুললে পথ হারাবার আশঙ্কাই অধিকতর। যেমনটা এখানে ঘটেছে। এখন আমাদের দেখতে হবে, এ ব্যাপারে ইসলাম কী বলে ? শরীয়তের নির্দেশনা হলো, জামাআতে নামাজ আদায় করলে ইমাম ও মুক্তাদী এক জায়গায় থাকবেন। এ ক্ষেত্রে কতটুকু ব্যবধান হলে মাকরূহ হবে, আর কতটুকু দূরত্বে নামাজ মোটেও সহীহ হবে না- এর বিবরণ ফুকাহায়ে কেরাম সবিস্তার উল্লেখ করেছেন। টিভিতে সম্প্রচারিত নামাজে সাধারণত যে দূরত্বে থেকে মুক্তাদী ইমামের অনুসরণ করবেন- এর বৈধতা দলীলসিদ্ধ নয়। আর বিভিন্ন মুসলিম দেশে টিভি চ্যানেলে নামাজের যে লাইভ সম্প্রচার করা হয় তা শুধুমাত্র দেখার জন্য; অনুসরণ করে নামাজ আদায়ের জন্য নয়। এখন আসুন, আমরা আলোচ্য বিষয়ের কিছু শরঈ দলীল এবং আরব আলেমদের ফাতাওয়া দেখে নিই।

    ** ফিকহের প্রসিদ্ধ কিতাব আল-বাহরুর রায়েকে আছে:
    الثالث : اتحاد موقفهما ، فإن اختلف كما إذا كان بينهما نهر أو طريق لم يصح والمسجد مكان واحد وإن تباعد وفناؤه ملحق به .
    الكتاب : البحر الرائق شرح كنز الدقائق
    378/3
    অর্থাৎ ইক্তেদা সহীহ হওয়ার জন্য ইমাম-মুক্তাদীর অবস্থান এক হওয়া জরুরী। ভিন্ন হলে ইক্তেদা শুদ্ধ হবে না।।



    ** কুয়েতের ওয়াযারাতুল আওকাফ থেকে ৪৫ খণ্ডে প্রকাশিত আল-মাউসূআ একই কথা লিখেছে:
    يشترط لصحّة الاقتداء أن يجمع المقتدي والإمام موقف واحد ، إذ من مقاصد الاقتداء اجتماع جمعٍ في مكان ، كما عهد عليه الجماعات في الأعصر الخالية ، ومبنى العبادات على رعاية الاتّباع فيشترط ليظهر الشّعار
    الكتاب : الموسوعة الفقهية الكويتية 7/26

    ** শাইখ ওয়াহবা যুহাইলী রহ. একই বর্ণনা দিয়েছেন:
    وأما تفصيل رأي الحنفية : فهو أن اختلاف المكان بين الإمام والمأموم مفسد للاقتداء، سواء اشتبه على المأموم حال إمامه أو لم يشتبه على الصحيح. فلو اقتدى راجل براكب، أو بالعكس، أو راكب براكب دابة أخرى، لم يصح الاقتداء لاختلاف المكان، فلو كانا على دابة واحدة صح الاقتداء لاتحاد المكان.
    الكتاب : الفِقْهُ الإسلاميُّ وأدلَّتُهُ 2/391

    ** সৌদী আরবের বিশিষ্ট ফকীহ শাইখ মুহাম্মদ সালেহ আল-মুনাজ্জিদ হাফি.-এর তত্ত্ববধানে পরিচালিত প্রসিদ্ধ ইসলামী সাইট “الإسلام سؤال وجواب ’’-এ প্রকাশিত সংশ্লিষ্ট বিষয়ের একটি ফতোয়া নিম্নরূপ:
    حكم الاقتداء بالإمام من خارج المسجد أو الصلاة خلف المذياع **
    السؤال
    شاهدنا في شهر رمضان عبر التلفاز أن بعض الأشخاص يصلون التراويح مع إمام الحرم وهم في مساكنهم المجاور للحرم ، فما حكم ذلك ؟
    نص الجواب
    الحمد لله
    من أراد أن يصلي في مسجد جماعة فلا بد أن يسعى إلى المسجد ، فإذا اقتدى بالإمام من بيته فلا جماعة له ، ولو كان يرى الإمام أو المأمومين ،

    প্রশ্ন করা হয়েছে, টিভিতে সম্প্রচারিত হারাম শরীফের তারাবীহের অনুসরণে কেউ বাড়িতে তারাবীহ আদায় করতে পারবে কি না?
    উত্তরে বলা হয়েছে, জামাআতে শরীক হতে চাইলে মসজিদে যেতে হবে; ঘর থেকে ইমামের ইকতেদা করা সহীহ হবে না।।

    ** সৌদী আরবের প্রখ্যাত মুহাদ্দিস ও ফকীহ শাইখ মুহাম্মদ বিন সালেহ আল-উসাইমীন রহ. বলেন,
    قال الشيخ ابن عثيمين – رحمه الله – في شرحه كتاب زاد المستقنع
    فالصَّوابُ في هذه المسألة : أنَّه لا بُدَّ في اقتداءِ مَن كان خارجَ المسجدِ مِن اتِّصالِ الصُّفوفِ ، فإنْ لم تكن متَّصِلة : فإنَّ الصَّلاة لا تَصِحُّ .
    مثال ذلك : يوجد حولَ الحَرَمِ عَماراتٌ ، فيها شُقق يُصلِّي فيها الناسُ ، وهم يَرَون الإِمامَ أو المأمومين ، إما في الصَّلاةِ كلِّها ؛ أو في بعضِها ، فعلى كلامِ المؤلِّفِ : تكون الصَّلاةُ صحيحةً ، ونقول لهم : إذا سمعتم الإِقامة فلكم أنْ تبقوا في مكانِكم وتصلُّوا مع الإِمام ولا تأتوا إلى المسجدِ الحرام .
    وعلى القول الثاني : لا تَصِحُّ الصَّلاةُ ؛ لأنَّ الصفوفَ غيرُ متَّصلةٍ ، وهذا القولُ هو الصَّحيحُ ، وبه يندفع ما أفتى به بعضُ المعاصرين مِن أنَّه يجوز الاقتداءُ بالإِمامِ خلفَ ” المِذياعِ ” ، وكَتَبَ في ذلك رسالةً سمَّاها : ” الإقناع بصحَّةِ صلاةِ المأمومِ خلفَ المِذياع ” ، ويلزمُ على هذا القول أن لا نصلِّيَ الجمعةَ في الجوامع بل نقتدي بإمام المسجدِ الحرامِ ؛ لأنَّ الجماعةَ فيه أكثرُ فيكون أفضلَ ، مع أنَّ الذي يصلِّي خلفَ ” المِذياع ” لا يرى فيه المأموم ولا الإِمامَ ، فإذا جاء ” التلفاز ” الذي ينقل الصَّلاة مباشرة يكون مِن بابِ أَولى .
    ولكن هذا القولُ لا شَكَّ أنَّه قولٌ باطلٌ ؛ لأنه يؤدِّي إلى إبطالِ صلاةِ الجماعةِ أو الجُمعة ، وليس فيه اتِّصالَ الصُّفوفِ ، وهو بعيدٌ مِن مقصودِ الشَّارعِ بصلاةِ الجمعةِ والجماعةِ .

    والذي يصلِّي خلفَ ” المِذياع ” يصلِّي خلفَ إمامٍ ليس بين يديه بل بينهما مسافات كبيرة ، وهو فتح باب للشر ؛ لأنَّ المتهاون في صلاةِ الجُمُعة يستطيع أن يقولَ : ما دامتِ الصَّلاةُ تَصِحُّ خلفَ ” المِذياع ” و ” التلفاز ” ، فأنا أريدُ أن أصلِّيَ في بيتي ، ومعيَ ابني أو أخي ، أو ما أشبه ذلك نكون صفَّاً .
    فالرَّاجح : أنه لا يَصِحُّ اقتداءُ المأمومِ خارجَ المسجد إلا إذا اتَّصلتِ الصُّفوف ، فلا بُدَّ له مِن شرطين :
    1. أن يَسمعَ التكبيرَ .
    2. اتِّصال الصُّفوف .
    أما اشتراطُ الرُّؤيةِ : ففيه نظر ، فما دام يَسمعُ التَّكبير والصُّفوف متَّصلة : فالاقتداء صحيح ، وعلى هذا ؛ إذا امتلأ المسجدُ واتَّصلتِ الصُّفوف وصَلَّى النَّاسُ بالأسواقِ وعلى عتبة الدَّكاكين : فلا بأس به .
    ” الشرح الممتع ” ( 4 / 297 – 300 ) .
    আলোচনার সারাংশ হলো, টিভি ও রেডিওতে সম্প্রচারিত নামাজের অনুসরণ করে নামাজ আদায় সহীহ হবে না।।
    ** মিসরের সাবেক মুফতি শাইখ আলী জুমআর অভিমত,
    حُكم صلاة الجمعة خلف إمام في التليفزيون أو الراديو
    قال الدكتور علي جمعة مُفتي الجمهورية الأسبق وعضو هيئة كبار علماء الأزهر الشريف، إن صلاة الجمعة خلف إمام في التلفزيون أو الإذاعة، ليست صحيحة، سواء كانت بالمسجد أو البيت، منوهًا بأن ذلك لفقد الاتصال بين الإمام والمُصلين.
    وأوضح «جمعة» في إجابته عن سؤال: «يوجد في الحي الذي نسكنه مسجد صغير، يتطوع أحد المسلمين ممن هو على دراية بالعلم، ليؤم المُصلين بيوم الجمعة، وفي أحد الجمع انتظر المُصلون ذلك الإمام لكنه لم يحضر، فصلى الحاضرون الجمعة مقتدين بالإمام الذي تُذاع خطبته وصلاته بالراديو، فما حُكم الصلاة في هذه الحالة؟، هل هي صحيحة؟»، أنه لا تصح الصلاة في واقعة السؤال، لفقدها شرط الاتصال بين الإمام والمصلين.
    وأضاف أن علماء المذاهب الأربعة يقولون بوجوب الاتصال لتصح الإمامة، والشخص الذي يتم نقل صلاته بالمذياع، يُصلي في مكان بعيد كل البُعد عن مكان المُصلين، بما يقطع الاتصال بين الإمام والمُصلين، فلا تصح الصلاة، أما إذا كان بُعد المُصلين عن الإمام على سبيل الكثرة حيث أنهم متصلين وممتدين إلى أبعد مكان، فإنه في هذه الحالة تصح صلاتهم.
    صدى البلد
    www.elbalad.news › …
    الإثنين 30/سبتمبر/2019
    বক্তব্যের খোলাসা হলো, ইমাম ও মুক্তাদিদের স্থানগত সংযোগ না থাকার কারণে টিভি ও রেডিওতে সম্প্রচারিত নামাজের অনুসরণ করে নামাজ আদায় সহীহ হবে না।।
    *** বিস্তারিত দেখুন:
    :145/1 بدائع الصنائع في ترتيب الشرائع
    الدر المختار ورد المحتار:514/1،547-5
    موسوعة الفقه الإسلامي 1/45

    লেখক: মুফতি ছালেহ বিন আব্দুল কুদ্দুস
    প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক: শাহবাজপুর, বি-বাড়িয়া, বাংলাদেশ।
    ২০/৪/২০২০ইং, সোমবার।।

    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    নিয়ত অনুসারে নিয়তি ও পরিনতি

    ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম