• শিরোনাম


    টাঙ্গাই‌লে কুপ্রস্তাব দেয়ায় শিক্ষককে পিটিয়ে পুলিশে দিলো ছাত্রীরা। আওয়ার কণ্ঠ

    | ০২ অক্টোবর ২০১৮ | ৫:৩৩ পূর্বাহ্ণ

    টাঙ্গাই‌লে কুপ্রস্তাব দেয়ায় শিক্ষককে পিটিয়ে পুলিশে দিলো ছাত্রীরা।  আওয়ার কণ্ঠ

    যৌন হয়রানির অভিযোগে টাঙ্গাইল শহরের বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সাইদুর রহমানকে পিটিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে ছাত্রী ও অভিভাবকরা। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়ে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাহরিয়ার রহমান সোমবার দুপুরে এ দণ্ডাদেশ দেন। এছাড়া পরিস্থিতি সামাল দিতে অভিযুক্ত শিক্ষককে বরখাস্ত করা হয়েছে।
    টাঙ্গাইল সদর মডেল থানার ওসি সায়েদুর রহমান বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষককে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। পরে ইভটিজিংয়ের অভিযোগে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাকে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়ে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়।
    ছাত্রী ও অভিভাবকরা জানান, বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সাইদুর রহমান দীর্ঘদিন ধরে ক্লাসে ও ক্লাসের বাইরে ছাত্রীদের বিভিন্ন অশালীন মন্তব্যসহ কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। তিনি সুযোগ পেলেই ছাত্রীদের শরীরে হাত দিতেন। অভিভাবকদের নিয়েও অশালীন মন্তব্য করতেন তিনি। সর্বশেষ গত রোববার তিনি নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে কুপ্রস্তাব দেন।
    ওই দিনই সব ছাত্রী মিলে প্রধান শিক্ষক মামুন তালুকদারকে বিষয়টি জানায়। কিন্তু প্রধান শিক্ষক কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো অভিযুক্ত শিক্ষকের পক্ষ নেন এবং স্কুল থেকে বের করে দেয়ার হুমকি দিয়ে ছাত্রীদের কাছ থেকে স্বাক্ষর আদায় করেন। একপর্যায়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন।
    সোমবার সকালে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচার ও শাস্তির দাবিতে ছাত্রীরা বিদ্যালয়ে মিছিল বের করে। এসময় সাইদুর রহমান বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে প্রবেশ করলে তাকে টেনে হিঁচড়ে বাইরে এনে বেদম মারপিট করেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় অভিযুক্ত সহকারী শিক্ষক সাইদুর রহমানের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। একই সাথে যৌন হয়রানিতে সহায়তাকারী প্রধান শিক্ষক মামুন তালুকদারকে অপসারণের দাবিও করেন তারা।
    বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মামুন তালুকদার অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, তিনি কোনো ছাত্রীদের কাছ থেকে স্বাক্ষর নেননি। তাদের দাবির প্রেক্ষাপটে সাঈদুর রহমান বাবুলকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।
    অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) আশরাফুল মোমিন বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদের দাবির প্রেক্ষাপটে সাইদুর রহমান বাবুলকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এসব ঘটনায় অন্য কেউ জড়িত থাকলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

    Facebook Comments



    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম