• শিরোনাম


    চিকিৎসা সেবায় ও ঔষুধের গায়ে মূল্য চাই জনগণ

    লেখক: ম. কাজী এনাম, স্টাফ রিপোর্টার | ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ

    চিকিৎসা সেবায় ও ঔষুধের গায়ে মূল্য চাই জনগণ

    বাংলাদেশের মানুষ অধিকাংশ দারিদ্রসীমার নিচে বসবাস করেন। শতকারা ২০-৩০% মানুষ এমন যে, তাদের ‘নুন আনতে পান্থা ফুরায়’ অবস্থা। হতদরিদ্র এই দেশের আবহাওয়া, দারিদ্র্যতা ও খাবারের ফরমালিন বিষক্রিয়ার কারনে নানান অসুখ-বিসুখের দেখা মিলে। গেল আগষ্ট মাসে কেবল ডেঙ্গুজ্বর রুগীর সংখ্যা প্রায় ৫১হাজার ছাড়িয়ে। সারাদেশের মানুষ এই মহামারি থেকে বাঁচতে হন্যে ছুটেছে ডাক্তারখানায়, কিন্তু সেখানেও শঙ্কামুক্ত নয়। প্রায় ছয়জন এমবিবিএস ডাক্তার পর্যন্ত এই রুগ থেকে মুক্তি পাইনি, পরপারে পারি জমিয়েছেন।
    এছাড়াও প্রাকৃতিক দুর্যোগ, বন্যা, জলোচ্ছ্বাস সহ বিভিন্ন কারনে এদেশে রুগীদের সংখ্যা অসংখ্য। সেই সাথে নেই মানসম্মত চিকিৎসা ব্যবস্থা। যার জন্য দেশের এলিট শ্রেণীর জনগণ ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা চিকিৎসা সেবা নিতে ভিন দেশে চলে যায়।

    যদিও দেশের চিকিৎসক প্রায় পর্যাপ্ত আছে, তাদের দিয়েই চালিয়ে দেওয়া যেতো কিংবা জনগণের জন্য যতেষ্ট হতো। কিন্ত দুর্ভাগা এই জাতির জন্য সবচেয়ে বোড় দুর্ঘটনা হলো মেডিসিন খাত। এই খাতে অনিয়মগুলো চোখে পড়ার মতো। অনিবন্ধিত ঔষুধ কোম্পানি, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে ঔষুধ তৈরী, মানহীন রসদ ব্যবহার ও ঔষুধের এমআরপি(মার্জিনাল রেইট অব প্রাইজ) ছাড়া নিজেদের ইচ্ছেমত প্রক্রিয়াজাত করা সহ নানান অনিয়ম লক্ষ্য করা যায়। এসবের জন্য দায়িত্বশীল সবাই বেওয়াকিফহাল বা মুখে কুলুপ এটে রাখা।



    ঈদানিং অনলাইন তথা সোসাল মিডিয়া ফেসবুকে একটা বিষয়ে বিষয়ে অনেকেই পোষ্ট করতেছে, রীতিমতো বিষয়টি ভাইরালের মতো আওয়াজ উঠছে ‘ঔষুধের পাতায় নির্ধারিত মূল্য নেই কেন? মূল্য চাই!’
    সকলেরই প্রায় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে ঔষুধের বক্স এবং পাতায় নির্ধারিত মূল্য নির্ধারণের পক্ষে শ্লোগান তুলছে। কারন এদের কয়েক পার্সেন্ট ঔষুধ বিক্রেতার কাছে লক্ষলক্ষ মানুষ প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছে। পঞ্চাশ পয়সার ট্যাবলেট পঁচাশি টাকা বিক্রয়েরও গুঞ্জন শুনা যায়। কিন্তু কেন? এই প্রশ্ন সাধারণ জনগণের।
    জনৈক ফেসবুকার নিজ টাইম টাইলে স্ট্যাটাস দেন, ‘ড্রাগস কি কোন পণ্য নয়? নাকি যারা ড্রাগস বিক্রয় করে, তারা মানুষ নয়? তবে কেন ড্রাগসের গায়ের মুল্য বিক্রেতা ছাড়া সাধারণ ক্রেতা জানার অধিকার রাখেনা??’

    অন্য একজন কোন এক গ্রুপে পোষ্ট করেন, ‘শুধুমাত্র ঔষুধ নয়, প্রাইভেট ডাক্তারের স্কেল অনুযায়ী ভিজিট ফি নির্ধারণ করা হউক।’ এসব পোষ্ট এখন নিয়মিত করা হচ্ছে। কিন্তু ফলাফল শুন্য। বিক্রেতা ক্যালকুলেটর নিয়ে বসে আছে, রোবটিক গতিতে হিসেব কষে বলে দিচ্ছে ঔষুধের মূল্য এতো! আর অসহায় রূগী বাধ্য হয়ে নিতে হচ্ছে এই ঔষুধ। অথচ কয়েকটা দোকান যাচাই করলেই খুজে পাওয়া যায় মূল্যের এদিকওদিক। কিন্তু রুগ্ন-ভগ্ন শরিরে কি আর সেসব করার ইচ্ছে বা শক্তি থাকে? থাকেনা। আর সেই লক্ষ্যে সচেতন জনগণের দাবী একটাই ‘ডাক্তারের ভিজিটমুল্য ও ঔষদের গায়ে নির্ধারিত মূল্য ধার্য্য করা হউক!’ যেন কেউ প্রতারিত না হয়।

    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম