• শিরোনাম


    খুনীদের বিচার হোক

    | ০১ জুলাই ২০১৮ | ৫:৫৫ পূর্বাহ্ণ

    ‘রক্তনেশা’ নামক উপন্যাসে একটা চরিত্র দিদু ওঝা। মানুষের রক্তপান তার নেশা। তার এই নেশার কারণে তাকে মেরে ফেলা হয়। একজনের ভুলের কারণে আবার অনেক বছর পর সে জীবিত হয়ে ওঠে। আবারও রক্তের নেশায় মেতে ওঠে দিদু ওঝা।

    বর্তমান সরকারের অতীত কর্মকাণ্ডে রক্তনেশার চরিত্র যেমন ফুটে ওঠে, বর্তমান কর্মকাণ্ডেও এই ঘৃণ্য চরিত্র পরিষ্কার হয়ে ওঠে। একটা দলের ভুলের কারণে এই রক্তখেকু পিশাচ আবার জীবিত হয়ে উঠেছে।



    গতকাল নৃশংস তাণ্ডবে মেতে ওঠে সরকারের পোষ্য জঙ্গী সন্ত্রাসী সংগঠন ছাত্রলীগ। সাধারণ ছাত্রদের ন্যায্য দাবির সংবাদ সম্মেলনে তারা মেতে ওঠে রক্তের নেশায়। এই ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছে অবৈধভাবে ক্ষমতায় আসা পিশাচ দলের খুনী ছাত্র সংগঠনটি, যদিও নামের আগে ছাত্র লাগানোর কোনো যৌক্তিকতা নেই। এদের কর্মকাণ্ড দেখলে মনে হয়, পড়ালেখা নয়, মানুষের রক্ত নিয়ে খেলা করাই এদের কাজ। এদের রক্তারক্তি খেলা চলে প্রতিনিয়ত। এই খুনী সংগঠনের রক্তখেলায় অতিষ্ঠ হয়ে শেখ হাসিনাও একসময় দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়িয়েছিল। কিন্তু কোনো ফল বয়ে আনেনি তার সরে দাঁড়ানো। রক্ত নিয়ে ওদের খেলা কখনোই থামেনি।

    সরকারের ছত্রছায়ায় বছরের পর বছর এসব খুনীদের লালন দেশ ও জনগণের জন্য ভয়াবহ হুমকি। গতকালের ঘটনায় আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। আমরা আশা করি, দোষীদের বিচারের আওতায় এনে সুষ্ঠু বিচার সম্পন্ন করা হবে। আমরা বিশ্বাস করতে চাই, মানবতার মা খ্যাত দলীয় প্রধান মানবতার বিরুদ্ধে তার অবস্থান পরিবর্তন করে, মানবতার পক্ষে এসে প্রাপ্ত খেতাবটির যথাযথ মূল্যায়ন করবেন।

    কোটা প্রথার নাগপাশ থেকে মানবতার মুক্তি হোক। আন্দোলনকারীদের সঙ্গে কৃত প্রতিজ্ঞার বাস্তবায়ন হোক। তাদের ন্যায্য দাবি পূরণ হোক। কোনো নাটক করে সাধারণ ছাত্রদের ন্যায্য দাবিকে ভেস্তে যেতে দেওয়া হবে না। সবাইকে একটা কথা মনে রাখা উচিত, এই দিনই শেষ দিন নয়, সামনে আরও দিন আছে। চিরকাল কেউ ক্ষমতায় থাকবে না, থাকতে পারবে না।

    Comments

    comments

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম