• শিরোনাম


    করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মতো বিকাশ ফ্লেক্সিলোড দোকান খোলার দাবী ব্যবসায়ীদের

    সৈয়দ আমিনুল ইসলাম জুবায়ের, সিলেট জেলা প্রতিনিধি। | ০২ এপ্রিল ২০২০ | ৭:৩৬ অপরাহ্ণ

    করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মতো বিকাশ ফ্লেক্সিলোড দোকান খোলার দাবী ব্যবসায়ীদের

    চলতি করোনাভাইরাস (কোভিড ১৯) প্রতিরোধে বিশ্বের দেশসমূহের মতো বাংলাদেশকেও লকডাউন রাখা হয়েছে। যার ফলে শ্রমজীবী লোক থেকে নিয়ে শুরু করে নানা শ্রেণীর লোকেরা হতাশায় জীবন যাপন কাটাচ্ছেন। পাশাপাশি সরকারী বেসরকারী ছুটি বাড়ানো হয়েছে। সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ঈদ পরবর্তী পর্যন্ত ছুটি বৃদ্ধি করা হয়েছে। চলতি করোনাভাইরাসে বিশ্বের অনেক দেশে মানুষ মারা গেছেন,তারমধ্যে অনেকের করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে এবং অনেক মানুষ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। বাংলাদেশে লকডাউন? বিষয়টি অনেক ব্যবসায়ীরা মেনে নিতে পারছেন না,কেননা, তাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিক্রি করতে না পেরে উল্টো লোকসানের মুখ দেখতে হচ্ছে তাদেরকে।
    নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মধ্যে লকডাউনের আওতাভুক্ত নয় কাচাবাজার, মুদি দোকান এবং ফার্মেসীসমুহ। লকডাউনে দ্বীমত পোষণ করেছেন বিকাশ এজেন্ট এবং ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবি যে,নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান খোলার অনুমতি হলে আমাদের বিকাশ ফ্লেক্সিলোড কি নিত্যপ্রয়োজনীয় মানুষের চাহিদা নয়? বিদেশে বসবাসরত অনেক বাংলাদেশী লোকেরা মোবাইল ব্যাংকিং তথা বিকাশের মাধ্যমে টাকা দেশে পাঠান,তাদের পাঠানো টাকায় সংসার চলে। অন্যদিকে ফোনালাপে মোবাইল ব্যালেন্স,ইন্টারনেট ব্যবহারে ইন্টারনেট ব্যালেন্স,সর্বোপরি ফ্লেক্সিলোড এর প্রয়োজন সবারই। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে এমন সংকটাপন্ন অবস্থায় নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মতো বিকাশ ফ্লেক্সিলোড দোকান খোলা রাখার দাবী বিকাশ এজেন্ট এবং ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ীদের।
    তাদের দাবী একটাই,সব নিয়ম মেনে জরুরী জিনিসগুলো এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় সবকিছু যেন খোলা রাখা হয়।

    Facebook Comments Box



    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম