• শিরোনাম


    কবি এস এম শাহনূর এর কবিতা ‘করোনার স্বীকারোক্তি’

    | ২৯ মার্চ ২০২০ | ১০:০৪ পূর্বাহ্ণ

    কবি এস এম শাহনূর এর কবিতা ‘করোনার স্বীকারোক্তি’

    করোনা এসেছে জালিমের শাসন থেকে
    করোনা এসেছে অত্যাচারীর খড়গ থেকে।
    করোনা এসেছে বঞ্চিতের আহাজারি থেকে
    করোনা এসেছে রঙিন সরাবের গ্লাস থেকে।

    করোনা এসেছে শিরক,বিদাতের কারণে
    করোনা এসেছে তাওহীদে না থাকার কারণে।
    করোনা এসেছে খোদার আইন না মানার কারণে
    করোনা এসেছে দারিদ্রকে ভয় করার কারণে।



    শুধায় তারে শাপলা ফোটা হিজল তমাল তলে
    সাত সমুদ্র তের নদী পাড়ে বাংলায় কেন এলে?
    সর্দি জ্বর শ্বাসকষ্ট মৃত্যু যন্ত্রণার উপসর্গ গলে
    রাগের স্বরে গড়গড় শব্দে চোখ রাঙিয়ে বলে-

    এসেছি করোনা ক্যাসিনো পতিতা পাড়ার জন্যে
    এসেছি করোনা গুম,অবিচার,নির্বিচারের জন্যে।
    এসেছি করোনা ধনী গরীবের ব্যবধানের জন্যে
    এসেছি করোনা ধর্মহীন জাতির শায়েস্তার জন্যে।

    করোনা এসেছে সম্পর্ক উন্নয়নের প্রয়োজনে
    করোনা এসেছে সুন্নি শিয়া মতবিভেদের কারণে।
    করোনা এসেছে মানবতার পুনর্জন্মের প্রয়োজনে।

    করোনা এসেছে সৌহার্দ্য সম্প্রীতি সত্য শেখাতে
    করোনা এসেছে সুদ ঘুষ তোষামোদি কমাতে।
    করোনা এসেছে দুনিয়ার হালাল হারাম চেনাতে
    করোনা এসেছে এক আল্লাহতে ঈমাণ শেখাতে।

    হে মানুষ,মানব জাতির সত্যিকারের ইতিহাস খুলে দেখ
    যুগেযুগে অপমান অপদস্ত ধ্বংস হয়েছে কত জাতি
    কী তার কারণ,দম্ভভরে চলতে গিয়ে একটু মনে রেখো।

    পার্থিব লোভ-লালসায় মত্ত সিরিয়ায় কওমে শোয়াইবের বসবাস ছিল।
    মাপে কম,মজুদদারির মতো জঘন্য অন্যায় কর্মের বিষবাষ্পে
    অগ্নিবৃষ্টি, ভূমিকম্পনে সবাই ধ্বংস হলো।

    হুদ (আ.)-এর অহংকারী আদ জাতির উন্নত জ্ঞান-বিজ্ঞান ও সংস্কৃতির কথা শুন নাই?
    স্বৈরশাসকের সুরম্য মজবুত অট্টালিকাও
    চিরকাল টিকে নাই।

    বাহরে লুতের শস্যে ভরা সবুজ শ্যামল
    ‘সাদুম’ নগরীর কথা শুন নাই?
    প্রাচুর্যময় জীবনযাত্রা বাড়িয়ে দেয় বিকৃত যৌনাচার, তাই
    (সমকামিতার প্রবণতা,)
    বৃষ্টির মতো কঙ্কর নিক্ষিপ্ত ও ভূমিকম্পনে
    একদিন পুরো নগরটি সম্পূর্ণ উল্টে যায়।

    পৃথিবীর সবচেয়ে সমৃদ্ধশালী উদ্ধত সামুদ জাতি
    মানবতা ও নৈতিকতায় নিন্মমুখী ছিল তাদের গতি।
    কুফর, শিরক ও পৌত্তলিকতায়
    চরিত্রহীন লোকের নেতৃত্বে চলত দেশ
    সালেহ (আ)র সত্যের দাওয়াত প্রত্যাখ্যানে
    প্রচণ্ড শব্দে ভূমিকম্পে নাস্তানাবুদ অবশেষ।

    আল্লাহর শাস্তি সম্পর্কে সতর্কিত বানীতেও
    মূর্তিপূজারিদের চৈতন্যোদয় হয়নি।
    অবশেষে ডুবে মরে এক ভয়ংকর প্লাবন ও জলোচ্ছ্বাসে
    নুহ (আ.)ও তার আহবানে সাড়া দানকারীরা নৌকায় ভাসে।

    নিজেকে খোদা দাবি করেছিল ফেরাউন। তার কাছে
    ইমানের দাওয়াত নিয়ে গিয়েছিলেন মুসা ও হারুন (আ.)।
    উত্তাল নীলনদের পানিতে সদলবলে ডুবে মরল খোদা নামধারী
    জাবালে ফেরাউন মানুষের জন্য নিদর্শনস্বরূপ আছে জারী।
    সৃষ্টির মাঝে তোমাকে না খোঁজে নিজের মত চলি,বলি, রচি সংবিধান
    কোরআন হাদিসের রীতিনীতি ভুলে গাহি ভন্ড ঠাকুরের গুনগান।

    গুটিবসন্ত,স্প্যানিশ-এশিয়ান-সোয়াইন ফ্লু,এইডস,ইবোলা
    করোনার মত আজাব,গজব থেকে আমাদের রক্ষা করো মাবুদ মাওলা।

    ➤রচনাকালঃ
    ২৭মার্চ ২০২০ইং
    কীর্তন খোলা নদীর তীর,
    বরিশাল নদী বন্দর।

    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    মগের মুল্লুক (কবিতা)

    ১১ আগস্ট ২০১৮

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম