• শিরোনাম


    কঠিন পরিণতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন রাজী

    | ২৯ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১২:৪৬ পূর্বাহ্ণ

    কঠিন পরিণতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ: মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন রাজী

    বাংলাদেশ সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানদের দেশ। শান্তি ও সমৃদ্ধির দেশ। সবুজ শ্যামল সুফলা বেশ। ক্ষমতার দ্বন্দ্বে এমন সোনার দেশটি এখন সাম্রাজ্যবাদী শক্তির ক্রীড়ানকে পরিণত হয়েছে।
    বিষয়টি বুঝার জন্য বড় কোন পন্ডিত হওয়ার প্রয়োজন নেই। শুধুমাত্র বর্তমান বিশ্বে মুসলমানদের অবস্থা নিয়ে কিছুক্ষণ ভাবলেই হবে। বিশেষ করে আমরা যদি সিরিয়ার রাজনৈতিক পরিস্থিতি, ইরাক, মিশর ও লিবিয়ান সরকার পতনের প্রেক্ষাপট ও ইতিহাস নিয়ে কিছুক্ষণ ভাবি তাহলেই চলবে।

    সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলো সরকার ও বিরোধী দল উভয়ের সঙ্গেই সমান সম্পর্ক রাখে এবং উভয়কেই নানা বিষয়ে উস্কানি দিতে থাকে। তারা মূলত কোন দেশে গন্ডগোল ও সহিংসতা জিইয়ে রাখতে চায়। এতে করে একদিকে যেমন তারা সে দেশের উপর কর্তৃত্ব বহাল রাখতে পারে; অন্যদিকে নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারে সহজেই সফলতা পেয়ে যায়।



    দ্বিতীয়তঃ যদি কোন দেশে এমন সরকার তারা প্রতিষ্ঠা করতে পারে যে সরকারের সঙ্গে জনগণের সম্পর্কের জায়গাটা দুর্বল। তো ধীরে ধীরে সামরিক আগ্রাসনের মাধ্যমে সেই দেশ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে নেয়ার পরিকল্পনা করে বসে। তারা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সেই সরকারকে সহযোগিতা করে আর কৌশলী বক্তব্য দিয়ে জনগণের আস্থা অর্জনের চেষ্টা অব্যাহত রাখে। যাতে করে সেই দেশের জনগণ ও সরকারের সম্পর্কটা চূড়ান্তভাবে তিক্ততায় পৌঁছে।

    একটা সময়ে এসে জনগণ বারবার তাদের ধারস্থ হতে থাকে এবং তারা সেটাকেই সুবর্ণ সুযোগ মনে করে সে দেশের দিকে সামরিক হাত প্রসারিত করে এবং জনগণও বাধ্য হয়েই তাদেরকে স্বাগত জানায়। লিবিয়া ও ইরাকে যেমনটা হয়েছে। আমেরিকার সঙ্গে যুদ্ধ করে সাদ্দাম বিশ্ব-মুসলিমের প্রশংসা কুড়ালেও ইরাকের জনগণের কাছে সাদ্দাম ছিল এক জালেম শাসকের নাম। লিবিয়ায় গাদ্দাফি যথেষ্ট উন্নয়ন করতে সক্ষম হয়েছিল; কিন্তু জনগণের ভাষা বুঝতে ব্যর্থ হয়েছিল।

    আধুনিক বিশ্বে মানুষ কোন কিছু পাওয়ার চেয়ে তার আত্মমর্যাদা ও বাকস্বাধীনতা কে বড় করে দেখে। বিদায় যতক্ষণ না তারা তাদের আত্মমর্যাদা ও কাজে-কর্মে স্বাধীনতা অর্জন করতে পারে ততক্ষণ কাউকে সমর্থন করতে রাজি হয় না। দীর্ঘমেয়াদি সরকারগুলো ক্ষমতার পথ নিস্কণ্ঠক করতে তারা বরাবরই মানুষের আত্মমর্যাদা ও স্বাধীনতা হরণ করে। আর মানুষ হয়ে ওঠে তাদের উপর অতিষ্ঠ। সমর্থন শূন্যের কোঠায় চলে যায় দীর্ঘমেয়াদি সরকারগুলোর।

    তাছাড়া দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার ফলে সেই সরকারের লুটপাট ও জবর দখলের ফিরিস্তিও দীর্ঘ হয়। এবং একটা সময় ক্ষমতা রক্ষার জন্য তাদেরকে হয়ে উঠতে হয় কঠিন হস্ত। শুরু হয় দীর্ঘমেয়াদি সহিংসতা ও সংঘর্ষ। একটা সময় জনগণ নিজ দেশের শাসকের উপর অন্য দেশের শাসক কে প্রাধান্য দিতেও দ্বিধা করে না।

    বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থা দেখে আমার তাই মনে হচ্ছে। মনে হচ্ছে কঠিন পরিণতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম