• শিরোনাম


    এজেন্ট, পোলিং এজেন্ট ও ভোটারদের করনীয়: মাওঃ তৈয়্যিবুর রহমান

    | ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

    এজেন্ট, পোলিং এজেন্ট ও ভোটারদের করনীয়: মাওঃ তৈয়্যিবুর রহমান

    একাদশ সংসদ নির্বাচনে কারচুপি, বলপ্রয়োগ এবং অস্থিতিশীল পরিবেশ পরিস্থিতির স্পষ্ট আলামত দৃশ্যমান, বিধায় নিম্নোক্ত পদ্ধতি কাজে লাগানোর চেষ্টা করতে হবে ।

    ১/- নির্বাচনের আগের রাত অর্থাৎ ২৯ ডিসেম্বর রাত থেকে এলাকার জনগণকে সাথে নিয়ে ভোট কেন্দ্রের আশপাশে সতর্ক দৃষ্টি রাখুন; যাতে করে কেউ রাতের আঁধারে ব্যলট বাক্সে ভোট কাস্ট করতে না পারে।
    ২/- সাহসী, ইয়াং এবং কমিটেড এজেন্ট নিয়োগ করেন।
    ৩/- ভোটের দিন ভোর বেলা এজেন্টগণ কেন্দ্রে পৌছে যাবেন।
    ৪/- প্রতিটি কেন্দ্রের আশপাশে অন্তত ২০/২৫ জন সাহসী এবং প্রভাবশালী লোকজন রাখুন, যাতে কোন অনিয়ম করতে গেলে ষড়যড়যন্ত্র কারীরা সাহস করতে পারেনা।
    ৫/-ব্যলট বই থেকে আগেভাগে ব্যালেট পেপারে সিল মারা হয়েছে কিনা তা খেয়াল রাখতে প্রথমেই এজেন্টগণ ব্যলট পেপারের প্রত্যেকটি বই গুনে নিন এবং কোন অসঙ্গতি থাকলে সাথে সাথে দায়িত্বরত প্রিসাইডিং অফিসারকে চ্যালেন্জ করুন।
    ৬/- আগেভাগে জাল এবং ভূয়া ব্যলট পেপার বাক্সে ভরে রাখা হয়েছে কিনা তা দেখতে ভোট শুরুর আগেই ব্যলট বাক্স গুলো চেক করুন। কোন অসঙ্গতি থাকলে সাথে সাথে প্রিসাইডিং অফিসারকে চ্যলেন্জ করুন।
    ৭/- কোন অনিয়ম দেখতে পারলে প্রিসাইডিং অফিসারকে সাথে সাথে চ্যালেন্জ করুন এবং ভোট গ্রহণ বন্ধ রাখার জন্য বলুন ও তাৎক্ষনিক প্রার্থী কিংবা প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট, নির্বাচন পরিচালনার কন্ট্রোল রুমে বার্তা পৌছে দিন।
    ৮/- একটি জিনিস ভাল ভাবে খেয়াল রাখুন, রেজাল্ট শীটে সকাল বেলা যদি কৌশলে স্বাক্ষর নিতে চায়; তাহলে কোন ভাবেই স্বাক্ষর করবেন না। ফলাফল বুঝে পাওয়ার পর রেজাল্ট শীটে স্বাক্ষর করবেন। যে কোন কাগজে স্বাক্ষর করার আগে ভাল ভাবে দেখে শুনে করবেন। কারো কথায় স্বাক্ষর করবেন না।
    ৯/- প্রত্যেক সেন্টারের জন্য কমপক্ষে ২/৩ সেট এজেন্ট রেডি রাখুন।
    ১০/- বিশ্বস্ত লোকজন কে এজেন্ট নিয়োগ করুন।
    ১১/-এজেন্ট তালিকা গোপন রাখুন।৩০ তারিখ সকাল ৭ ঘটিকার মধ্যে ভোট কেন্দ্রে হাজির হয়ে প্রিসাইডিং অফিসারের কাছে জমা দিন।প্রশাসনের কেউ চাইলে তালিকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করুন।রিটার্নিং অফিসারের কাছে শুধু মাত্র প্রধান নির্বাচনী এজেন্টের ফরম ফিলাপ করে জমা দিন।
    ১২/-মনে রাখবেন ভোট কেন্দ্রে যে কোন অনিয়ম প্রতিরোধে এজেন্ট এর চ্যালেন্জ করার সর্বোচ্চ আইনানুগ অধিকার রয়েছে। বিধায় সাহসী এজেন্ট নিয়োগ দিতে হবে।
    ১৩/-ভোট ডাকাতি প্রতিরোধে ভোট কেন্দ্র দখল কিংবা জাল ভোটের চেষ্টা করা হলে প্রথমে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অবহিত করুন। যদি কোন সুরাহা না হয় তাহলে জনগণকে সাথে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।
    ১৪/-প্রশাসন এবং নির্বাচন কমিশন যেহেতু নিরপেক্ষ আচরণ না করার যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে; বিধায় সকাল বেলা থেকে ফলাফল ঘোষণা পর্যন্ত স্থানীয় লোকজন এবং দলীয় নেতাকর্মীদের সমন্বয়ে শান্ত ভাবে কেন্দ্র পাহরায় রাখতে হবে।
    কখনই অতিউৎসাহী হয়ে আগেভাগে কোন বেআইনী কাজে কোন ভাবেই জড়ানো যাবেনা।



    আশাকরি উল্লেখিত বিষয়ে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে পারলে উপকৃত হওয়া যাবে।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম