• শিরোনাম


    আল্লামা আহমদ শফী দা.বা.সারা জীবন নারী অধিকারের পক্ষে কথা বলে এসেছেন: মুফতী ফয়জুল্লাহ

    গাজী আশরাফ আজহার, নিজস্ব প্রতিবেদক | ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ | ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ

    আল্লামা আহমদ শফী দা.বা.সারা জীবন নারী অধিকারের পক্ষে কথা বলে এসেছেন: মুফতী ফয়জুল্লাহ

    আমাদের বাংলাদেশের মিডিয়া জগতের একটা ঐতিহ্য হলো কেউ কোনো বক্তব্য দিলে সেই বক্তব্যের ব্যাখ্যা যখন নিজ থেকেই তিনি আবার প্রদান করেন, তখন ব্যাখ্যাটাই মুখ্য হয়ে ওঠে। আগের বক্তব্য অনেকটা রহিতের মতো হয়ে যায়। এবং এটা যুক্তিসঙ্গত। কারণ, ব্যাখ্যার মানে হচ্ছে তিনি আগে যে বক্তব্য দিয়েছেন সেটা রহিত, আর ব্যাখ্যায় যা বলেছেন, সেটাই তাঁর উদ্দেশ্য।

    শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী সাহেব দামাত বারাকাতুহ এ দেশের সর্বশীর্ষ আলেম-মুরব্বি। হাটহাজারীর মাহফিলে নারী-শিক্ষা বিষয়ে তিনি একটি বক্তব্য দিয়েছেন। বক্তব্যের পর বিশেষ বিবৃতিতে এর ব্যাখ্যাও প্রদান করেছেন। কিন্তু ব্যাখ্যা উপেক্ষা করে সে বক্তব্যকে নানাভাবে ব্যবহার করে একশ্রেণির মিডিয়া তাঁর ব্যাপারে ঘৃণা এবং কুৎসা ছড়াচ্ছে। সেই সূত্রে আমাদের দেশের সুশীল শ্রেণি নামে যারা পরিচিত, আল্লামা আহমদ শফীর বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছেন। তাঁরা সর্বজন শ্রদ্ধেয় এ মুরব্বিকে নিয়ে যে ভাষায় কথা বলছেন, তা নিতান্তই নীচু মানসিকতার পরিচয়। এটা থেকে আমাদের ফিরে আসা উচিত। টেলিভিশন-টকশোতে এসে তাঁরা যেভাবে কথা বলেন, মনে হয়, আল্লামা আহমদ শফী জনবিচ্ছিন্ন কোনো অপরিচিত ব্যক্তি। অথচ তাঁদের সেটা মনে থাকে না, এ দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের সিংহভাগ তাঁকে নিজেদের মাথার মুকুট মনে করে।



    আল্লামা শাহ আহমদ শফী সেদিন যে বক্তব্য দিয়েছেন, এবং বক্তব্যের ব্যাখ্যায় যা বলেছেন, এ দেশের সম্মিলিত কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ডের প্রধান হিসেবে তাঁর জন্য তা নিতান্ত স্বাভাবিক এবং বাস্তবসম্মত বক্তব্য। তাঁর কথাগুলো এ দেশের অভিভাবক যারা, তাদেরই মনের কথা।

    তিনি বলেছেন, আমাদের দেশে নারীরা নির্যাতিত হচ্ছে, নিপীড়িত হচ্ছে, যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে—এ থেকে আমাদের মা-বোন-মেয়েদের বাঁচাতে, নিরাপদ একটা পরিবেশে তাদের জীবন গড়ে তুলতে তাদের জন্য আলাদা কর্ম ও শিক্ষাক্ষেত্র গড়ে তুলতে হবে।

    তিনি মূলত এ আহ্বানটাই জানিয়েছেন। তাঁর জীবনে অসংখ্য বক্তব্য তিনি দিয়েছেন, যেখানে মানবাধিকারের কথা আছে, ন্যায়নীতি ইনসাফ ও সাম্যের কথা আছে, নারী-অধিকারের কথা আছে, নারীর সুন্দর ও নিরাপদ জীবন-ব্যবস্থা গড়ে তোলার দিক-নির্দেশনার কথা আছে, সেগুলো তো কখনও মিডিয়ায় এল না! এখন হঠাৎ করে তাঁর একটি বক্তব্যকে কাটছাঁট করে মিডিয়ায় উপস্থাপনের উদ্দেশ্যটা কী? যে বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি একাধিক ব্যাখ্যাও দিয়েছেন! আমরা ব্যাখ্যায় না গিয়ে কেন পড়ে আছি মিডিয়া-বিকৃত সেই খণ্ডিত বক্তব্য নিয়ে? কেন তাঁকে এবং এদেশের আলেম সমাজকে নারীবিরোধী হিসেবে দাঁড় করানোর চেষ্টা করা হচ্ছে?

    আল্লামা শাহ আহমদ শফী হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির। নারীঅধিকারের ব্যাপারে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মূল বক্তব্য হচ্ছে, নারী জাতির সার্বিক উন্নয়নের জন্য নিরাপদ পরিবেশে তাঁদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কর্মস্থল নিশ্চিত করতে হবে। এটাই হেফাজতে ইসলামের মূল দাবি এবং একই সঙ্গে আল্লামা শাহ আহমদ শফী দা. বা.-এর বক্তব্যের খোলাসা কথা।

    আজ নারীরা নানাভাবে বঞ্চনা ও লাঞ্চনার শিকার। শিক্ষাক্ষেত্র, কর্মক্ষেত্র—কোনো জায়গাতেই তাঁরা নিরাপদ নন। যার ফলশ্রুতিতে যৌন হেনস্থা, ধর্ষণ, গণধর্ষণ—এসব ভয়াবহ অপরাধ নিত্তনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে নারীকে বের করে আনতে হলে আমাদের নৈতিকভাবে পরিশুদ্ধ হতে হবে। পাশাপাশি নারী-পুরুষের সহশিক্ষা ও সহকর্মক্ষেত্র পদ্ধতিকে বিলুপ্ত করে নারীদের জন্য সম্পূর্ণ পৃথক শিক্ষা ও কর্মক্ষেত্রের ব্যবস্থা করতে হবে।

    তাছাড়া নারী-নির্যাতন বন্ধের জন্য আইনের প্রয়োগহীনতা বড় একটা ব্যাপার। আমাদের দেশে আইন আছে, কিন্তু এর প্রয়োগ নেই। যার দরুণ অপরাধপ্রবণতা বাড়ছে। আইনের প্রয়োগ নিশ্চিত করলে এবং নারী-নির্যাতকদের দ্রুত শাস্তির মুখোমুখি করলে এই অবক্ষয় অনেকাংশেই রোধ করা সম্ভব হবে ।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম