• শিরোনাম


    আল্লামা আনসারী রাহ.-এর জানাযা প্রসঙ্গে হলুদ মিডিয়া ও টকশো পন্ডিতদের উদ্দেশ্যে কিছু কথা

    মাওলানা ইমদাদুল হক নোমানী, অতিথি লেখক | ১৯ এপ্রিল ২০২০ | ৫:০৪ পূর্বাহ্ণ

    আল্লামা আনসারী রাহ.-এর জানাযা প্রসঙ্গে হলুদ মিডিয়া ও টকশো পন্ডিতদের উদ্দেশ্যে কিছু কথা

    দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত মরদেহ অধিকাংশ কওমি হুজুররাই, সাহসীকতার সাথে স্বেচ্ছায় দাফন-কাফন করছে। স্বল্পআয়ী এই মোল্লারা পকেটে যা আছে, তা নিয়েই ক্ষুদার্ত মানবতার পাশে দাঁড়িয়েছে। বউয়ের শাড়ি গহনা বিক্রি করে, মানবতার খেদমতে উত্তম দৃষ্টান্ত স্থাপন করে যাচ্ছে। ইসলামি ঘরনার সোস্যাল সংগঠনগুলো, ত্রাণকর্তা হিসেবে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে। চুপেচাপে মানুষের ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিচ্ছে। দিবালোকে, রাতের আঁধারে গরীবের চাল চুরি, তেল চুরিতে তারা নেই। এগুলো চোখে পড়ে না?
    .
    দেশের একজন প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন, বিশ্ব নন্দিত মুফাসসিরে কুরআন আল্লামা জুবায়ের আহমদ আনসারী রাহ’র জানাযা নিয়ে এতো চুলকানি কেন? লকডাউন না হলে কোটি জনতার হৃদয়ের স্পন্দন, প্রিয় রাহবারকে আজ শেষ বিদায় জানাতে জমায়েত হতো লক্ষ লক্ষ মানুষ। সুশীল নামক কুশীল মুক্তবাদীরা তখন দেখতে, কুরআনের কোকিলের প্রতি মানুষের কেমন অকৃত্রিম ভালোবাসা। তোমাদের জানাযা, সমাহিতেতো ভাড়া করেও মানুষ জড়ো হয় না। তাই বলে কী এতো গাত্রদাহ?
    .
    বি-বাড়ীয়ায় কী মুসলমান নাই? কাল সন্ধ্যা থেকে জেলার বিভিন্ন এলাকা হতে ভক্তবৃন্দরা পায়ে হেটে প্রিয় আনসারীকে শেষ বিদায় জানাতে বেড়তলার দিকে রওয়ানা হয়। এ জনশ্রুত ছিলো ভালোবাসার, শ্রদ্ধার। ভালোবাসার মানুষটিকে শেষবারের মতো একনজর দেখতে, সেখানে ছুটে যায় মানুষ। যথাসম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মেনেই জানাযায় শরীক হয় আপামর তাওহিদী জনতা।
    .
    দেশব্যাপী লকডাউন আমরা জানি এবং মানি। জানাযা ফরযে কেফায়া, তাও আমাদের অজানা নয়। জীবনের মায়া আমাদেরও কমবেশি আছে। তাইতো শত ইচ্ছা, আগ্রহ থাকার পরও, লকডাউন ভঙ্গ করে জেলার বাহির থেকে আমরা জানাযায় শরীক হইনি। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল হতে লোকজন আসেনি (দু’একজন মুরব্বী উলামা, রিলেটিভি ব্যতীত)। সেটা কি আপনারা জানেন? নাকি জেনেও নাটক সাজাতে ব্যস্ত আছেন?
    .
    আর সামাজিক দূরত্বের দোহাই দিচ্ছেন! লকডাউন উপেক্ষা করে ঢাকার গার্মেন্টস শ্রমিকদের রাস্তায় নেমে দলেদলে বিক্ষোভ, হাটবাজারে, রাস্তাঘাটে, টিসিবির পণ্যক্রয়ে, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে ভয়াবহ লোক সমাগম কী কালো চশমায় ধরা পড়ে না? বুদ্ধি প্রতিবন্ধী আর কারে কয়! কই লোকায় তখন আপনাদের সচেতনতা আর মানবতা! চেতনার ফেরিওয়ালারা কোন গ্রহে বাস করেন তখন?
    .
    সবাই সমান না। কিছুসংখ্যকদের টার্গেটকৃত তীর আমাদের গায়ে আঘাত করে। হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। তাই বাকিদেরে বিনয়ের সাথে বলছি, একচোখা দৃষ্টিভঙ্গী বদলান। কালোকে কালো আর সাদাকে সাদা বলতে অভ্যস্ত হোন। টেলিভিশনের পর্দায় বিক্রিত মেধা, মানসিকতার বিকৃত পান্ডিত্য বাদ দিন। ইসলাম ও মুসলমানদের নিয়ে অযথা বাড়াবাড়ি, ফতোয়াবাজী ছাড়ুন। পশ্চিমা আর রাম বাবুদের খুশি রাখতে, পা চাটা গোলামী না করে, সত্য, সুন্দর ও নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করুন। আমরাও আপনাদেরকে সাধুবাদ, মুবারকবাদ জানাবো। মনে রাখবেন, আমরা আপনাদের শত্রু নয়। দেশের শ্রেষ্ঠ মানবসম্পদ
    হিসেবে, আমরা আপনাদের স্যালুট জানাতে কার্পণ্য করব না।

    লেখক মাও.ইমদাদুল হক নোমানী।



    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম