• শিরোনাম


    আর্ত-মানবতার সেবা করাই ইসলামের শিক্ষা :- মুফতি ছালেহ বিন আব্দুল কুদ্দুস

    মুফতি ছালেহ বিন আব্দুল কুদ্দুস, অতিথি লেখক | ১৭ এপ্রিল ২০২০ | ৬:৫৮ পূর্বাহ্ণ

    আর্ত-মানবতার সেবা করাই ইসলামের শিক্ষা :- মুফতি ছালেহ বিন আব্দুল কুদ্দুস

    ইসলাম মানবতার ধর্ম। আর্ত-মানবতার পাশে দাঁড়ানো দ্বীনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশ। মানুষের সেবা করা, দুঃখীজনের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়ানো একটি উত্তম ইবাদত। সকল নবী-রাসূল (আ.), সাহাবায়ে কেরাম (রা.) এবং যুগে যুগে মুসলিম মনীষীগণ মানব সেবার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। তাদের অবিস্মরণীয় কীর্তিগাথা লিখে ইতিহাসের অনেক সোনালী অধ্যায় রচিত হয়েছে ।

    পবিত্র কুরআনুল কারীমে আল্লাহ তাআলা বলেন,
    وَأَحْسِنُوٓاْ إِنَّ ٱللَّهَ يُحِبُّ ٱلْمُحْسِنِينَ
    আর মানুষের প্রতি অনুগ্রহ কর। আল্লাহ অনুগ্রহকারীদেরকে ভালবাসেন।
    –(সূরা আল বাকারা ১৯৫)



    আম্বিয়ায়ে কেরাম আ. পরোপকার ও মানুষের দুঃখ মোচনে সচেষ্ট ছিলেন। হযরত ইউসুফ আ.এবং হযরত মুসা আ. প্রমুখের মানবসেবার কথা কুরআনুল কারীমে উল্লেখিত হয়েছে। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ সা. কথা-কাজে বিশ্ববাসীকে মানবতার পাঠ শিখিয়ে গেছেন। হাদিস শরীফে এসেছে,
    وفي صحيح مسلم عن أبي هريرة -رضي الله عنه- قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: ”من نفّس عن مؤمن كربة من كرب الدنيا نفّس الله عنه كربة من كرب يوم القيامة، ومن يسّر على معسر يسر الله عليه في الدنيا والآخرة، والله في عون العبد مادام العبد في عون أخيه”
    রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি কোনো মুমিনের দুনিয়ার বিপদসমূহ থেকে একটি বিপদ দূর করবে, আল্লাহ তা’আলা তার কিয়ামত দিবসের বিপদসমূহ থেকে একটি বিপদ দূর করে দিবেন। যে ব্যক্তি কোন সংকটাপন্ন ব্যক্তির সংকট নিরসন করবে, আল্লাহ তার দুনিয়া ও আখেরাতের সংকট নিরসন করে দিবেন ।আর আল্লাহ বান্দার সাহায্যে ততক্ষণ থাকেন, যতক্ষণ বান্দা তার ভাইয়ের সাহায্যে থাকে।।
    -( সহীহ মুসলিম)

    অন্য হাদিসে বলা হয়েছে,
    وعن ابن عمر ـ رضي الله عنهما
    أن رجلاً جاء إلى النبي صلى الله عليه وسلم فقال: يا رسول الله؛ أي الناس أحب إلى الله؟ وأي الأعمال أحب إلى الله؟ فقال رسول الله صلى الله عليه وسلم:
    أحب الناس إلى الله تعالى أنفعهم للناس، وأحب الأعمال إلى الله تعالى سرور تدخله على مسلم، أو تكشف عنه كربة، أو تقضي عنه ديناً، أو تطرد عنه جوعاً، ولأن أمشي مع أخ في حاجة أحب إلي من أن أعتكف في هذا المسجد ـ يعني مسجد المدينة ـ شهراً
    رواه ابن أبي الدنيا في كتاب: قضاء الحوائج،
    والطبراني وغيرهما وحسنه الألباني.

    হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রাযি. থেকে বর্ণিত, নবী করীম সা.-এর নিকট এক ব্যক্তি এসে বলল: হে আল্লাহর রাসূল! আল্লাহ তাআলার কাছে সবচে প্রিয় ব্যক্তি এবং প্রিয় আমল কোনটি ? তখন রাসূল সা. বললেন, আল্লাহ তাআলার নিকট প্রিয় সে ব্যক্তি যে মানুষের উপকার করে। আর আল্লাহ তাআলার কাছে প্রিয় আমল এই যে,- তুমি কোন মুসলিমকে আনন্দিত করবে, অথবা তার দুঃখ দূর করবে, কিংবা তার কর্জ পরিশোধ করে দিবে, বা তার ক্ষুধা নিবারণ করবে। আর কোন ভায়ের প্রয়োজন পূরণ করতে চলা আমার নিকট মদীনার মসজিদে এক মাস ইতিকাফ করা থেকে বেশী প্রিয়।। –(তাবারানী)

    আরেক হাদিসে কুদসিতে উল্লেখ রয়েছে,
    إن الله يقول يوم القيامة: قال رسول الله ﷺ
    يا ابن آدم، مرضت فلم تعدني، قال: يا رب، كيف أعودك وأنت رب العالمين؟ قال: أما علمت أن عبدي فلانًا مرض فلم تعده؟ أما علمت أنك لو عدته لوجدتني عنده، يا ابن آدم استطعمتك فلم تطعمني، قال: يا رب، كيف أطعمك وأنت رب العالمين؟ قال: أما علمت أنه استطعمك عبدي فلان فلم تطعمه، أما علمت أنك لو أطعمته لوجدت ذلك عندي، يا ابن آدم استسقيتك فلم تسقني، قال: يا رب، كيف أسقيك، وأنت رب العالمين؟ قال: استسقاك عبدي فلان فلم تسقه، أما علمت أنك لو سقيته لوجدت ذلك عندي، رواه مسلم.

    রাসূল সা. বলেন, ‘কিয়ামতের দিনে আল্লাহ তায়ালা বলবেন, হে আদম সন্তান, আমি অসুস্থ হয়েছিলাম, কিন্তু তুমি আমার শুশ্রূষা করোনি। বান্দা বলবে, হে আমার প্রতিপালক , আপনিতো বিশ্বপালনকর্তা কীভাবে আমি আপনার শুশ্রূষা করব !? তিনি বলবেন, তুমি কি জানতে না যে, আমার অমুক বান্দা অসুস্থ হয়েছিল, অথচ তাকে তুমি দেখতে যাওনি। তুমি কি জান না, যদি তুমি তার শুশ্রূষা করতে তবে তুমি তার কাছেই আমাকে পেতে ? হে আদম সন্তান, আমি তোমার কাছে আহার চেয়েছিলাম, কিন্তু তুমি আমাকে আহার করাওনি। বান্দা বলবে, হে আমার রব, আপনি তো বিশ্ব পালনকর্তা, আপনাকে আমি কীভাবে আহার করাব ? তিনি বলবেন, তুমি কি জানতে না যে, আমার অমুক বান্দা তোমার কাছে খাদ্য চেয়েছিল, কিন্তু তাকে তুমি খাদ্য দাওনি। তুমি কি জানতে না যে, তুমি যদি তাকে আহার করাতে তবে আজ তা প্রাপ্ত হতে ? হে আদম সন্তান, তোমার কাছে আমি পানীয় চেয়েছিলাম, অথচ তুমি আমাকে পানীয় দাওনি। বান্দা বলবে, হে আমার প্রভু, তুমি তো রাব্বুল আলামীন তোমাকে আমি কীভাবে পান করাব?! তিনি বলবেন, তোমার কাছে আমার অমুক বান্দা পানি চেয়েছিল কিন্তু তাকে তুমি পান করাওনি। তাকে যদি পান করাতে তবে নিশ্চয় আজ তা প্রাপ্ত হতে।।
    – ( সহীহ মুসলিম )

    নবুওয়তের আগে রাসূল সা. মক্কা শহরের সেবা সংস্থা ‘হিলফুল ফুজুল’-এর সাথে সম্পৃক্ত থেকে মানবসেবার মহৎ কাজ আঞ্জাম দিয়েছেন। জনকল্যাণমূলক কর্মকাণ্ডে সংগঠনটি তৎকালে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল। নবুওয়তের পরও নবীজী সা. জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে মানবতার সর্বোত্তম দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। হাদিস ও সীরাতের প্রতিটি আধ্যায়ে এর অসংখ্য বর্ণনা বিদ্যমান।।

    এ পর্যা‌য়ে সাহাবায়ে কেরাম ও সালাফের মানবতাবোধের দু’চারটি টুকরো কাহিনী বিভিন্ন ইতিহাসগ্রন্থের আরবী পাঠ অনুবাদসহ তুলে ধরছি।

    كان يقال لزينب بنت خزيمة رضي الله عنها زوج نبينا محمد صلى الله عليه وسلم: أم المساكين، لكثرة إطعامها المساكين وصدقتها عليهم؛ (أسد الغابة؛ لابن الأثير، ج6، ص129
    উম্মুল মু’মিনীন যায়নাব বিনতে খুযায়মা রাযি. অসহায়দেরকে এত পরিমাণ খাবার খাওয়াতেন এবং উপঢৌকন প্রদান করতেন যে, তাকে ‘উম্মুল মাসাকীন- মিসকীনদের অভিভাবক’ বলা হতো।

    قال الزبير بن العوام رضي الله عنه: مر أبو بكر الصديق رضي الله عنه يومًا ببلال بن رباح رضي الله عنه وهو يعذَّب، فقال لأمية بن خلف: ألا تتقي الله في هذا المسكين؟ حتى متى؟ قال: أنت أفسدته، فأنقذه مما ترى، فقال أبو بكر:
    أفعل، عندي غلام أسود أجلد منه وأقوى على دينك، أُعطيكه به، قال: قد قبِلت، قال: هو لك، فأعطاه أبو بكر غلامه ذلك، وأخذ بلالًا فأعتقه؛ (سيرة ابن هشام، ج1، ص318
    হযরত যুবাইর ইবনুল আওয়াম রাযি. বলেন, হযরত আবু বকর রাযি. একদা হযরত বিলাল রাযি.কে কুখ্যাত উমাইয়া বিন খালফ কর্তৃক নির্যাতিত হতে দেখে তাকে বললেন, অসহায় লোকটির ব্যাপারে তোর মধ্যে আল্লাহর ভয় আসেনা ? আর কতকাল অত্যাচার করবি? উমাইয়া বলল, তুমিই তো একে নষ্ট করেছ, এখন তাকে উদ্ধার করো। তিনি বললেন, আমার শক্তিশালী গোলামটি ওর পরিবর্তে তোকে দিয়ে দেব। সে বলল, ঠিকাছে। তখন তিনি ঐ গোলামের বদলে হযরত বিলাল রাযি.-কে এনে আযাদ করে দিলেন।।

    كان عمر بن الخطاب رضي الله عنه يتعهد عجوزًا كبيرةً عمياءَ في بعض نواحي
    المدينة بالليل، فيسقي لها ويقوم بأمرها، فكان إذا جاءها وجد غيره قد سبقه إليها،
    فأصلح ما أرادت، فجاءها غير مرة؛ كيلا يُسبق إليها، فرصده عمر، فإذا هو أبو بكر الصديق رضي الله عنه الذي يأتيها وهو يومئذ خليفة؛ (تاريخ الخلفاء؛ للسيوطي، ص 75).
    হযরত উমর রাযি. রাত্রে এক অন্ধ বৃদ্ধার দেখাশোনা করতেন; তার পানি এনে দিতেন এবং প্রয়োজনীয় কাজ করে দিতেন। একবার এসে দেখলেন, তাঁর আগেই কে যেন কাজ করে চলে গেছে। পরদিন তিনি আগেই এসে ‍ওঁৎ পেতে বসে থাকলেন লোকটি কে, তা দেখার জন্য। দেখলেন, তিনি মুসলিম জাহানের বাদশাহ হযরত আবু বকর রাযি.।।

    وكان علي بن الحسين -رحمه الله- يحمل الخبز إلى بيوت المساكين في الظلام، فلما مات فقدوا ذلك، كان ناس من أهل المدينة يعيشون ولا يدرون من أين معاشهم، فلما مات علي بن الحسين فقدوا ذلك الذي كان يأتيهم بالليل
    হযরত আলী ইবনে হুসাইন রহ. রাতের অন্ধকারে অসহায় মানুষের ঘরে ঘরে অজ্ঞাতসারে খাবার দিয়ে আসতেন। মদীনার অনেক মানুষ এই খাবার দ্বারা জীবীকা নির্বাহ করত। তারা জানত না, কোথেকে এসব আসে! তাঁর ইন্তেকালের পর তাদের অজানা উৎসের খাবার আর পায়নি।।

    قال يحيى بن بكير رحمه الله: احترقت دار عبدالله بن لهيعة رحمه الله، فبعث إليه الليث بن سعد رحمه الله بألف دينار؛ (حلية الأولياء؛ لأبي نعيم الأصبهاني، ج7، ص322
    হযরত ইয়াহইয়া ইবনে বুকাইর রহ. বলেন, হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে লাহিআ রহ.-এর ঘর পুড়ে গেলে হযরত লাইছ ইবনে সাদ রহ. তাঁর কাছে এক হাজার স্বর্ণমূদ্রা হাদিয়াস্বরূপ পাঠালেন।।

    عن معمر أن طاووساً أقام على رفيق له مريض يخدمه حتى فاته الحج
    হযরত মা’মার রহ. বলেন, হযরত তাউস রহ.-এর বন্ধু অসুস্থ হয়ে গেলে ধারাবাহিকভাবে তার খেদমত করতে লাগলেন। রোগীর সেবা করতে গিয়ে তিনি হজ করতে পারলেন না।।

    قال ابن القيم – رحمه الله – في وصف شيخ الإسلام ابن تيميه:
    “كان شيخ الإسلام يسعى سعياً شديداً لقضاء حوائج الناس”
    হযরত ইবনুল কাইয়িম রহ. বলেন, ইমাম ইবনে তাইমিয়া রহ. মানুষের প্রয়োজন পূরণে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যেতেন।।
    উপরোক্ত লেখায় অতি সংক্ষিপ্ত পরিসরে ইসলামে মানবতার শিক্ষার দিকটি তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। বিষয়বস্তুর ব্যাপকতার তুলনায় তা খুবই স্বল্প। এ বিষয়ের বিস্তারিত আলোচনা গ্রন্থের পর গ্রন্থ ফুরিয়ে দিবে, কিন্তু শেষ হবে কি না- সন্দেহ আছে। ইতিহাস বলে, ইসলামই পৃথিবীকে মানবতা শিখিয়েছে। আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে দ্বীনের সঠিক শিক্ষা হৃদয়ে ধারণ করার তাওফীক দান করুন, আমীন।।
    লেখক: মুফতি ছালেহ বিন আব্দুল কুদ্দুস
    প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক: শাহবাজপুর, বি-বাড়িয়া, বাংলাদেশ।
    ১৬/৪/২০২০ইং, বৃহস্পতিবার।।

    *বিস্তারিত দেখুন:
    ابن كثير تفسير
    سيرة ابن هشام (1/123-124
    السيرة النبوية (1/259
    أسد الغابة؛ لابن الأثي
    ر تاريخ الخلفاء؛ للسيوطي
    حلية الأولياء؛ لأبي نعيم الأصبهاني
    رابط الموضوع: https://www.alukah.net/sharia/0/118437/#ixzz6JkkrfUT8
    رابط المادة :http://iswy.co/e48cs

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    নিয়ত অনুসারে নিয়তি ও পরিনতি

    ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮  
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম