• শিরোনাম


    অবহেলিত মাতৃভাষা বাংলা, এই কি ছিল ভাষা আন্দোলনের প্রত্যাশা? -ম.কাজীএনাম

    লেখক: ম. কাজী এনাম, স্টাফ রিপোর্টার | ২৫ ডিসেম্বর ২০১৯ | ১২:৪৩ অপরাহ্ণ

    অবহেলিত মাতৃভাষা বাংলা, এই কি ছিল ভাষা আন্দোলনের প্রত্যাশা?  -ম.কাজীএনাম

    অনলাইনের সুবিধায় আমরা সকলেই দিনদিন লেখক হয়ে উঠছি। বিশেষ করে হরহামেশা স্যোসাল মিডিয়া ফেসবুকে তো লিখছি’ই..
    কেউ হয়তোবা পেশায় লিখছে, কেউ নেশায়, আবার কেউ নিজ দায়িত্বশীলতায়। তবে কম-বেশি আমরা সবাই লিখছি। যদিও এই লেখার কোন সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য সকলেরই অজানা। একটা অবসর কাটাতে কিংবা অচেনা-অজানা একটা মোহে আমরা লিখে যাচ্ছি। কাজের লিখা কয়টাইবা আছে?

    ইসলামী ধারার লেখকগণ অবশ্য কিছু একটা বাস্তবিক দিক নিয়েই লেখালিখি করেন। তবে দুঃখের বিষয় হলো, এই ধারার প্লাটফর্ম একদমই অগুছালো এবং সাহিত্যের মান খুব নিচু মানের। কাচা হাতের পাকা কথা অথবা মানহীন সাহিত্যের দ্বারা মানসম্পন্ন দ্বীনি আলোচনা অনেক সময় মানুষের কাছে হেয়-প্রতিপন্ন, হাস্যকর বা উপহাস্য হয়ে উঠে। তখন নিজেদের নিজের কাছেই নিজেকে ছোট মনে হয়। সোনালী যুগের কথাগুলো যখন বর্তমান জাহেলিয়াত যুগে এসে দুই টাকার সাহিত্যের কাছে অবমুল্যায়ন হয়, তখন হতাশ না হয়ে পারা যায়না। খুব আফসোস লাগে নিজেদের প্রতি। অথচ এই আমাদের অনেক দ্বীনবন্ধুরাই কিন্তু আরবি-ফার্সী-উর্দু বৈদেশিক ভাষাগুলো খুব করে নিজেদের মাঝে ধারন করতে পারি। নিখুঁত ভাবে সেই সকল ভাষার জ্ঞান আমাদের মাঝে থাকা দোষের কিছু নয়, তবে মাতৃভাষা যে অবহেলায় আছে সেটাই দুঃখের বিষয়। আমরা যে ভাষার মাধ্যমে দ্বীনের কাজ করব, সভ্যতার হাতছানি দেবো, সেই ভাষাটা যদি আমাদের কাছে শক্তিশালী ভাবে না রাখতে পারি, থাহলে অন্যান্য জ্ঞানের পরিধি তো খুবই খাটো হয়ে যাবে-যাচ্ছে!



    মাদ্রাসা পড়ুয়া অনেক ত্বোলাবায়ে আজিজদের আমি দেখেছি, যাদের মুখে আরবী ভাষা মাতৃভাষার মতো অনর্গল বেরোতে থাকে, কিন্তু ঘুছিয়ে মাতৃভাষাটা বলতে পারেনা(?) কিন্তু কেন? মাতৃভাষা তো মায়ের কোল থেকেই আমাদের মুখে। এই ভাষার চর্চাক্ষেত্র তো আমাদের পাড়াগাঁয়ের জী-চাচিদের কাছ থেকে শুরু। ইহা তো শিক্ষাঙ্গনে আসার পর আরও উন্নত, আরও বিস্তৃত, আর শক্তিশালী হবার কথা ছিল! কিন্তু হিতে বিপরীত হলো। এই কলঙ্কের দায়ভার আমাদেরই। আমাদের অবহেলার জন্যেই এমনটি হয়েছে। এসব থেকে অচিরেই যদি বেড়োতে না পারি আমাদেরই তার খেসারত দিতে হবে।

    আর স্কুল-কলেজ পড়ুয়াদের একই অবস্থা। মাদ্রাসা পড়ুয়াদের কাছে যেমন আরবি গুরুত্বপূর্ণ, স্কুল-কলেজে পড়ুয়াদের কাছে ইংরেজি তেমনই গুরুপূর্ণ। প্রতি দুই-তিনটা বাংলা শব্দের ভেতর ইংরেজি একটা শব্দের অনুপ্রবেশ থাকছেই। ৫২এর ভাষা আন্দোলন কি এই জন্যেই হয়েছিল? অবশ্যই ‘না!’ খুব আশ্চর্য লাগে, যখন দেখি একটা ছেলে বাংলায় কোন ভাবে পাস করেছে এবং সে’ই ইংরেজিতে অর্জন করে স্টেন্ড মার্ক। ইহা দু’একটা ঘটনা না, অহরহ এবং কমন ঘটনা। এসব দেখলে ভাষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি খুব বেশি কষ্ট অনুভব হয়।
    মনে মনে ভাবতে থাকি, ‘এই কি ছিল ভাষা আন্দোলনের প্রত্যাশা?’

    Facebook Comments Box

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    মগের মুল্লুক (কবিতা)

    ১১ আগস্ট ২০১৮

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে আওয়ারকণ্ঠ২৪.কম